অনুপ চেটিয়াকে ভারতের কাছে হস্তান্তর: পিটিআই

93
Spread the love

anupchatia_dailysylhetনিজস্ব প্রতিবেদক : উলফা নেতা অনুপ চেটিয়াকে ভারতের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে বলে দাবি করেছে দেশটির রাষ্ট্রীয় সংবাদ সংস্থা প্রেস ট্রাস্ট অব ইন্ডিয়া (পিটিআই)। বুধবার সকালে তাকে হস্তান্তর করা হয় উল্লেখ করে পিটিআই দাবি করেছে, একটি উচ্চ পর্যায়ের সূত্র তাদের এ তথ্য জানিয়েছে। আনন্দবাজারের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, মঙ্গলবার গভীর রাতে তাকে সিবিআইয়ের হাতে প্রত্যার্পণ করা হয়। কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী কিরণ রিজিজু বুধবার জানান, মঙ্গলবার গভীর রাতে সিবিআইয়ের হাতে অনুপকে তুলে দেওয়া হয়েছে। টাইমস অব ইন্ডিয়ার (টিআইটি) প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, সিবিআইয়ের একটি দল বুধবার তাকে দিল্লি নিয়ে যেতে পারে। গোয়েন্দা সংস্থার একটি সূত্র টিআইটিকে জানিয়েছে, প্রথমে কেন্দ্রীয় সংস্থা অনুপ চেটিয়াকে জিজ্ঞাসাবাদ করতে পারে। পরে তাকে আসাম পুলিশের হেফাজতে দেওয়া হবে। পিটিআইয়ের খবরে বলা হয়, প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির ব্যক্তিগত হস্তক্ষেপ ও প্রধানমন্ত্রীর জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা অজিৎ দোভালের সক্রিয় সম্পৃক্ততার ফলে অনুপকে হস্তান্তর করা হলো। ১৯৯৭ সালে বাংলাদেশ পুলিশের হাতে গ্রেফতার হওয়ার পর থেকে এদেশেই ছিলেন ইউনাইটেড লিবারেশন ফ্রন্ট অব আসামের (উলফা) এ প্রতিষ্ঠাতা সদস্য ও জেনারেল সেক্রটারি। চেটিয়া ভারতের হত্যা, অপহরণ ও চাঁদাবাজি মামলার পলাতক আসামি। পিটিআইয়ের খবরে বলা হয়, অনুপ চেটিয়া ১৯৯৭ সালে বাংলাদেশে আটক হওয়ার পর ২০০৫, ২০০৮ ও ২০১১ সালে তিনবার রাজনৈতিক আশ্রয় চেয়েছিলেন। বাংলাদেশের আদালত তাকে অনুপ্রবেশ, জাল পাসপোর্ট বহন ও অবৈধভাবে বিদেশি মুদ্রা রাখার অপরাধে সাত বছর কারাদণ্ড দিয়েছিলেন। সাজার মেয়াদ শেষ হয়ে যাওয়ার পর ২০০৩ সালে হাইকোর্ট তার রাজনৈতিক আশ্রয়ের জন্য করা আবেদনের বিষয়টি নিষ্পত্তি না হওয়া পর্যন্ত তাকে নিরাপত্তা হেফাজতে রাখার নির্দেশ দেন। এজন্য এতদিন কারাগারেই ছিলেন অনুপ চেটিয়া। ১৯৯৭ সালের ২১ ডিসেম্বর ঢাকার মোহাম্মদপুর এলাকার একটি বাসা থেকে অনুপ চেটিয়াকে আটক করে পুলিশ। এরপর তার বিরুদ্ধে অবৈধভাবে বাংলাদেশে অবস্থান এবং অবৈধভাবে বিদেশি মুদ্রা ও একটি স্যাটেলাইট ফোন রাখার অভিযোগে তিনটি মামলা হয়। পরে তিনটি মামলায় তাকে যথাক্রমে তিন, চার ও সাত বছরের সশ্রম কারাদণ্ড দেন বাংলাদেশের আদালত। ২০০৭ সালের ২৫ ফেব্রুয়ারি তার সাজার মেয়াদ শেষ হয়। তিনদফায় বাংলাদেশে রাজনৈতিক আশ্রয় চেয়ে নরা পেয়ে ২০১৩ সালে ভারতে ফিরে যাওয়ার আগ্রহ প্রকাশ করে চেটিয়া। রাজশাহী কেন্দ্রীয় কারাগারে থাকা অনুপ চেটিয়া কারা কর্তৃপক্ষের মাধ্যমে এ আগ্রহের কথা জানিয়ে বাংলাদেশ সরকারকে একটি চিঠি দেন। চিঠিতে তিনি ইতিপূর্বে বাংলাদেশে রাজনৈতিক আশ্রয়ের জন্য করা আবেদন প্রত্যাহারের কথাও বলেন।ভারতের উত্তর-পূর্বাঞ্চলীয় রাজ্য আসামের স্বাধীনতার লক্ষ্যে ১৯৭৯ সালে গঠিত হয় উলফা। এরপর দুই দশকেরও বেশি সময় ধরে সশস্ত্র তৎপরতা চালায় সংগঠনটি। ভারতীয় গণমাধ্যমের খবর অনুযায়ী, ২০০৯ সালের শেষ দিকে উলফার চেয়ারম্যান অরবিন্দ রাজখোয়াসহ সংগঠনের শীর্ষ পর্যায়ের প্রায় সব নেতাকে বাংলাদেশ থেকে ধরে ভারতের কাছে হস্তান্তর করা হয়। এরপর ২০১০ সাল থেকে দিল্লিতে ভারতীয় কর্তৃপক্ষের সঙ্গে উলফার শান্তি আলোচনা চলছে।


Spread the love