আখেরি মোনাজাতে কল্যাণ কামনা, মানুষের ঢল

76
Spread the love

pic-iz-2যশোর অফিস : দেশবাসীর কল্যাণ কামনায় আখেরি মোনাজাতের মাধ্যমে যশোরে শেষ হলো বিশেষ ইজতেমা। আখেরি মোনাজাতে অংশ নিতে ফজরের নামাজশেষে ইজতেমাস্থলের দিকে আসতে শুরু করে হাজারে হাজারে মানুষ। আখেরি মোনাজাত পরিচালনা করেন ঢাকাস্থ কাকরাইল মসজিদের শুরা সদস্য তাবলিগ জামাতের মুরুব্বি মাওলানা আহম্মদ হোসাইন। বেলা ১২টার কিছু সময় আগে মোনাজাত শেষ হয়। তিনি গোটা বাংলাদেশের মানুষের শান্তি ও কল্যাণ কামনা করেন। ইজতেমাস্থলে আগত এবং বাইরে থাকা সকলের হেদায়েত কামনা করেন তিনি।
মোনাজাত পরিচালনাকালে তিনি পরম করুণাময়ের কাছে সমস্ত মুসলিম জাতি যেনো সহি সালামতে থাকতে পারেন, ঈমানের সঙ্গে যেনো দুনিয়ার সব কাজকর্ম পরিচালনা করতে পারেন- সেলক্ষ্যে মহানআল্লাহর করুণাভিক্ষা করেন। এর আগে যশোরে অনুষ্ঠানরত বিশেষ ইজতেমায় শুক্রবার মানুষের ঢল নামে। বিশেষ করে শহর ও দূরদুরান্তের বহু মানুষ ইজতেমা মাঠে জুমার নামাজ আদায় করতে ছুটে আসেন। জুমার নামাজে কয়েক লাখ মুসল্লির সমাবেশ ঘটে। মূল ইজতেমাস্থলে স্থান সংকুলান না হওয়ায় আশপাশের ফাঁকা জায়গা, সড়কসহ বিভিন্ন স্থানে নামাজে দাঁড়িয়ে যান মুসল্লিরা। গত বৃহস্পতিবার যশোর উপশহরে শুরু হয় বিশেষ ইজতেমা। শনিবার ইজতেমার তৃতীয় ও শেষদিন। এদিন ইজতেমা মাঠে ও তার আশপাশে আখেরি মোনাজাতে অংশ নিতে সকাল থেকেই পায়ে হেঁটে ও  নানা ধরনের যানবাহনে চেপে হাজার হাজার মানুষকে যেতে দেখা যায়। আয়োজক কমিটির নেতারা জানিয়েছেন, ফজরের নামাজের পর থেকে তৃতীয়দিনের বয়ান শুরু হয়। যশোর উপশহর কলেজ মাঠ ও তৎসংলগ্ন চারটি মাঠসহ আশপাশের এলাকায় সমবেত ধর্মপ্রাণ মুসল্লিরা এ বয়ান শোনেন। গত বৃহস্পতিবার ও শুক্রবার গভীর রাত পর্যন্ত দেশের বিভিন্ন জেলার তাবলিগ জামাতের মুরব্বিরা বয়ান পেশ করেন। শনিবার দুপুরে আখেরি মোনাজাতের মধ্যদিয়ে ইজতেমা শেষ হলো। গাজীপুরের টঙ্গীর তুরাগ তীরে বিশ্ব ইজতেমায় মুসল্লিদের জায়গা সংকুলান না হওয়ায় গত বছর বিশ্ব ইজতেমাকে দু’ভাগে বিভক্ত করা হয়। ২০১৬ সালের জানুয়ারিতে ঢাকা ও এর আশপাশের ৩২টি জেলার মুসল্লিরা টঙ্গীর ইজতেমায় অংশগ্রহণ করবেন।


Spread the love