আখেরী মোনাজাতের মধ্য দিয়ে হযরত শাহজালাল(র.) ওরস সম্পন্ন

72
Spread the love

37854সিলেট প্রতিনিধি : ওলীকূল শিরোমণি,উপমহাদেশের প্রখ্যাত ইসলাম ধর্ম প্রচারক, হযরত শাহজালাল (রহ.) এর ৬৯৬তম ওরস উপলক্ষে ভক্তবৃন্দের পদচারণায় মুখরিত হয়ে ওঠেছে সিলেট নগরী। দেশ বিদেশ থেকে আসা বিপুল সংখ্যক ভক্তবৃন্দ জিকির আজগার করে ওরস পালন করছেন। আজ শনিবার ফজরের নামাজের পর আখেরী মোনাজাত ও শিরণী বিতরণের মাধ্যমে ভাঙ্গবে এই মিলন মেলা। মহান সাধক হযরত শাহজালাল (র.) এর দরগাহে গতকাল শুক্রবার থেকে শুরু হয় দু’দিনব্যাপী ওরস। গতকাল শুক্রবার সকালে গিলাফ ছড়ানোর মাধ্যমে ওরসের কর্মসূচি শুরু হয়। ভক্তবৃন্দ ছাড়াও বিভিন্ন সংগঠনের পক্ষ থেকে হযরত শাহজালাল (র.) এর মাজারে গিলাফ ছড়ানো হয়েছে। গতকাল প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার পক্ষে মাজারে গিলাফ ছড়ান সিলেট জেলা ও মহানগর আওয়ামীলীগের নেতৃবৃন্দ। এ ছাড়া ওরসে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার পক্ষ থেকে একটি গরু ও প্রদান করেন আওয়ামীলীগ নেতৃবৃন্দ। ওরস উপলক্ষে দু-তিন দিন আগ থেকেই দূর দূরান্তের আশেকানরা সিলেটে আসা শুরু করেন। গতকাল গতকাল ওরসের প্রথম দিন লোকে লোকারণ্য হয়ে ওঠে মাজার এলাকা। গাড়ি বহর করে দলে দলে সিলেটে এসে পৌঁছান হযরত শাহাজালালের আশেকানরা। কুরআনখানি, মিলাদ দোয়া ও জিকির আজগার করে তারা রাত পার করেন। গতকাল সন্ধ্যার পর দেখা যায়, দরগাহ মাজার প্রাঙ্গণ ছাড়াও আশপাশ এলাকা লোকে লোকারণ্য। আম্বরখানা, দর্শনদেউড়ী, দরগাহ মহল্লা, চৌহাট্টা এলাকা ওরসে আসা হযরত শাহজালালের ভক্তবৃন্দের পদচারণায় মুখরিত। আলিয়া মাদ্রাসা মাঠসহ আশপাশ এলাকায় সারি সারি করে যানবাহন রাখা হয়েছে। দরগাহের আশপাশের আবাসিক হোটেল গুলোও বুকড হয়ে গেছে। রাতে থাকার জন্য বিভিন্ন স্থানে আবাসিক হোটেল খুঁজে বেড়াচ্ছেন দলে দলে আসা ভক্তবৃন্দরা। এদিকে, ওরসকে কেন্দ্র করে মাজার এলাকায় কঠোর নিরাপত্তা ব্যবস্থা গ্রহণ করে সিলেট মেট্রোপলিটন পুলিশ। ওরসে আশা ভক্তবৃন্দের নিরাপত্তার জন্য এবং শৃঙ্খলা রক্ষায় তিনস্তরের নিরাপত্তার পাশাপাশি চেকপোস্ট বসানো হয়। এসএমপি সূত্র জানায়, শাহজালাল (রহ.) এর ওরসকে কেন্দ্র করে পুরো মাজার এলাকাকে নিজেদের নিরাপত্তা বলয়ের আওতায় নিয়ে এসেছে পুলিশ। গত বৃহস্পতিবার থেকেই মাজারকে ঘিরে নিরাপত্তার কাজ শুরু করে সিলেট মহানগর পুলিশ। পুরো মাজার এলাকার নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে কাজ করছে ছয় শতাধিক পুলিশ। এছাড়া,সাদা পোশাকে শতাধিক পুলিশ সাধারণ মানুষের সাথে মিশে গিয়ে, ভিক্ষুক সেজে, ভাসমান পণ্য বিক্রেতা হিসেবে, নানা রূপে কাজ করবে মাজারকে ঘিরে। এছাড়াও র্যাব, স্পেশাল ব্র্যাঞ্চ (সিটি এসবি), গোয়েন্দা সংস্থা এনএসআই, ডিজিএফআইসহ আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বিভিন্ন বাহিনীর সদস্যরা মাজারের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে সার্বক্ষণিকভাবে কাজ করেছেন। এদিকে,ওরসের নিরাপত্তা নিশ্চিদ্র করতে প্রায় ১৫টি সিসিটিভি বসিয়েছে এসএমপি। এগুলোর মাধ্যমে একটি মনিটরিং কক্ষ থেকে নিয়ন্ত্রণ করা হয় সবকিছু। আজ শনিবার আখেরী মেনাজাত এবং এর পর শিরনী বিতরণের মাধ্যমে শেষ হবে ওরসের আনুষ্ঠানিক কার্যক্রম।


Spread the love