আল্লামা ত্বাকী উসমানী যখন আমার শিক্ষক

79
Spread the love

এ কে এম এরশাদ উল্লাহ মাহমুদ : আমি বড়ই ভাগ্যবান। বিশ্ববিখ্যাত ফকিহ, হাদিছ বিশারদ, ইসলামীক স্কলার আল্লামা ত্বাকী উসমানী মুদ্দাজিল্লুহু এর ছাত্র হতে পেরেছি। ২০১২ সালের শেষের দিকে হযরত বাংলাদেশ সফর করেছেন।
 উম্মুল মাদারিস হাটহাজারী আরবী বিশ্ববিদ্যালয় ও চট্রগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের বিশেষ দাওয়াতে তিনি চট্রগ্রামে আসলেন। তখন আমি হাটহাজারীতে থাকি।বিশ্ববিদ্যালয়ের  বন্ধুবর মারুফ আমার বাসায় এসেছিল সেদিন। শুনলাম হযরত ত্বাকী সাহেব আগামীকাল হাটহাজারী মাদ্রাসার দারুল হাদিছে ফজরের সালাতের পর বোখারীর দরস দিবেন। মারুফ ভাই ও আমার বাসায় সে উদ্দেশ্যে এসেছিল অর্থাৎ ত্বাকী সাহেবের ছাত্রত্ব অর্জন করবে। রাতে দুজনের মাঝে অনেক কথা হলো। পরের দিন সকালে হযরতের দারস শ্রবণ করবো। রাতে গুমিয়ে গেলাম, ফজরের আযানের শব্দ শুনে জাগ্রত হলাম, নামাজ কালাম আদায় করে দুজনে দ্রুত চলে গেলাম হাটহাজারী মাদ্রাসার দারুল হাদিছে। ততক্ষণে বিশালাকার দৃষ্টিনন্দন দারুল হাদিছে তিল ধারণের টাঁই নেই। হযরত ত্বাকী সাহেব হাদিছের মসনদে বসেছেনে, পাশে হুসাইন আহমদ মাদানির খলিফা আল্লামা শফি সাহেব, অপরাপর মাহাদ্দিছবৃন্দ সকলে নিচে বসেছেন। হাজার হাজার ছাত্ররা  একমুখী হয়ে বসে আছেন,সবার সামনে আল -জামে, আস-সহীহ, আল-মুসনাদ, আল -মুখতাসার মিন উমুরি রাসুলিল্লাহি (সাঃ)ওয়া আইওয়্যামিহি ওয়া সুনানিহি অর্থাৎ পবিত্র বোখারি শরীফ। হযরত তাকরির শুরু করলেন, পিন পতন নিরবতা, তার মুখ থেকে মুক্তার মালার ন্যায় কথামালা বের হচ্ছে, হাদিছের অনুপম ব্যাখ্যা, কি জ্ঞান! কি তত্ত্ব ও তথ্য  প্রদান! অবাক করা দারস । জীবনের অদ্বিতীয় এক ক্লাস শুনলাম, তার প্রত্যেকটা বিশ্লেষণ আমার এখনো মনে আছে। আমি কেন ?  উপস্তিত মুহাদ্দিস, মুফাস্বির,বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকবৃন্দরাও রিতীমত অবাক নজরে হযরতের দিকে থাকিয়ে আছেন, আর হা,, করে আছেন, কী জ্ঞান!  কত বড় মাপের আলেম তা বলে শেষ করতে পারবোনা। তার সৃষ্টিকর্ম লিখনি সমূহ স্পষ্টই তার জ্ঞানের স্বাক্ষর বহণ করে। পৃথিবীর মাঝে যে সকল মনিষীদের নিয়ে জীবিত অবস্থায় পি,এইচ,ডি গভেষনা হয়েছে তার মাঝে আল্লামা ত্বাকী সাহেব একজন। এমনকি আমাদের চট্রগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে ও হয়েছে। যার থিসীস পর্যালোচনা অনুষ্ঠানে আমাদের ব্যাচম্যাটরা সহ আমিও  উপস্থিত ছিলাম। এই অনুষ্ঠানে আরবী বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক পরিদর্শক, বর্তমান চট্রগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের ইসলামীক স্টাডিজ ডিপার্টমেন্টের চেয়ারম্যান জনাব ড.প্রফেসর ইলিয়াছ সিদ্দিকীকে পি,এইচ,ডি থিসীস অনুমোদন দেওয়া হয়েছিল। যাইহোক আল্লামা ত্বাকী সাহেবের বহু লেখার মাঝে আমার দেখা ফিক্বহী মাকালাত, দরছে তিরমিযি, ইসলামি ব্যাংকিং ব্যাবস্তা ইত্যাদি কিতাব সমূহ অনুশীলন করে লক্ষ লক্ষ শিক্ষক শিক্ষার্থীরা উপকৃত হয়ে আসছে। এমন একজন ফকীহ আজম,মুহাদ্দিছে কবীরের ছাত্র হতে পেরে আমি নিজেকে ধন্য মনে করছি। মহান আল্লাহ হযরতকে আরো দীর্ঘায়ু করুন।

Spread the love