ঈশ্বরদী পৌরসভার ৬০ ভাগ রাস্তা চলাচলের অযোগ্য

92
Spread the love

ishurdi 5-9-15 (1) copyতামিমুল ইসলাম তামিম, ঈশ্বরদী : হাজারো সম্ভবনাময় ঈশ্বরদী পৌর এলাকায় কারপেটিংসহ বিভিন্ন প্রকার অসংখ্য রাস্তা রয়েছে। ১ দশমিক ৩৩ কিলোমিটার মোট রাস্তার মধ্যে বর্তমানে প্রায় ১’শ কিলোমিটার রাস্তায় খানাখন্দে ভরা ও চলাচলের অযোগ্য। পৌর এলাকায় বিটুমিনাস কার্পেটিং রাস্তা ৭৪ দশমিক ৭৬ কিলোমিটার, এইচবিবি ৩৩ দশমিক ৩০ কিলোমিটার, সিসি রাস্তা ৩ দশমিক ৭৫ কিলোমিটার, ডাব্লু বি এম রাস্তার পরিমান ২ দশমিক ৭ কিলোমিটার ও কাঁচা রাস্তা সাড়ে ১৮ দশমিক ৫ কিলোমিটার। এসব রাস্তার মধ্যে ঈশ্বরদী-পাবনা মহাসড়ক, ঈশ্বরদী-পাকশী ইপিজেড সড়ক, ঈশ্বরদী-লালপুর বিমান বন্দর সড়ক, ঈশ্বরদী বেনারশি পল্লী হয়ে মাজগ্রাম সড়ক, চাঁদআলীর মোড় থেকে কলেজ হয়ে অরনখোলা মোড় সড়ক, ভেলুপাড়া থেকে ইস্তা সড়ক,পৌরসভা থেকে উমিরপুর সড়ক, রেলগেট থেকে সাঁড়াঘাট সড়কসহ বিভিন্ন রাস্তার প্রায় ৬০ ভাগ রাস্তায় চলাচলের অযোগ্য হয়ে পড়েছে।  সামান্য বৃষ্টি হলেই এসব রাস্তার খানা-খন্দে পানি জমে অস্বস্তিকর পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়। মাঝে মধ্যেই দূঘর্টনাও ঘটে থাকে রাস্তা ভাঙার কারণে। যানবাহনও নানাভাবে ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছে ভাঙা রাস্তার কারণে। দীর্ঘদিন থেকে জনগনের ভোগান্তি থাকলেও এসব রাস্তা মেরামত করা হচ্ছে না। সম্পতি ঈশ্বরদী-পাকশী ইপিজেড রাস্তা মেরামতের দাবীতে এলাকাবাসী মানববন্ধন, প্রতিবাদ সভা ও বিক্ষোভ মিছিল করে এমনকি রাস্তার খানা-খন্দে ধান ও কলাগাছের চারা রোপন করে রাস্তা মেরামতের দাবী ও জনভোগান্তির প্রতিবাদ জানায়। এসব কর্মসূচি পালন করার পরও রাস্তাটি মেরামত না করায় বর্তমানে চলাচলের বেশি অযোগ্য হয়ে পড়েছে।

জানা গেছে, নির্বাচন কমিশন ঘোষিত চলতি বছরের শেষ দিকে যদি পৌরসভা নির্বাচনের তফশিল ঘোষণা করা হয় তাহলে এসব রাস্তা মেরামত করার সম্ভাবনা একেবারেই নেই। কেননা এসব রাস্তা সংস্কার কিংবা পূন:নির্মানের জন্য এখনো কোন টেন্ডার আহবান করা যায়নি। পৌর কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে ফান্ড না থাকার কারনে ইচ্ছা থাকলেও এসব রাস্তার টেন্ডার আহবান কিংবা সংস্কার করা যাচ্ছেনা। এদিকে এডিবি, অফিড ও বাংলাদেশ সরকারের যৌথ অর্থায়নে ইউজিআপ প্রকল্পের আওতায় তালিকাভূক্ত অন্যান্য পৌরসভার মত ঈশ্বরদীতেও প্রায় ৭৫ কোটি টাকার উন্নয়নমূলক কাজ বাস্তবায়ন হওয়ার কথা রয়েছে। এর মধ্যে প্রথম ধাপে প্রায় ১৩ কোটি টাকার প্রকল্প ইতিমধ্যে সংশ্লি¬ষ্ট দপ্তরে জমা দেওয়া হয়েছে। চলতি মাসেও যদি প্রথম ধাপের প্রকল্পটির অনুমোদন পাওয়া যায় তবে নির্বাচনের আগে এসব ভাঙা রাস্তাগুলো সংস্কার হতে পারে নতুবা নির্বাচনের আগে কোন উন্নয়ন মূলক কাজ করা যাবেনা। পৌরসভার দায়িত্বশীল সূত্রমতে, ৭৫ কোটি টাকার কাজ বাস্তবায়ন করতে হলে ধাপে ধাপে শর্ত পূরণ সাপেক্ষে বিশেষ করে বকেয়া বিদ্যুৎ বিল পরিশোধ, কর আদায়সহ নির্দিষ্ট কিছু শর্ত পুরণ করতে পারলে পৌরসভার রাস্তা মেরামত কাজে পরিবর্তন করা সম্ভব। আবার শর্ত পুরণ করতে না পারলে এ প্রকল্প বাতিলও হতে পারে। এসব বিষয়ে ঈশ্বরদী পৌর মেয়র মকলেছুর রহমান বাবলু সাংবাদিকদের বলেন, আমরা চেষ্টা করছি আশা করি নির্বাচনের আগে ভাঙা রাস্তার কাজ শুরু করতে পারবো।


Spread the love