গাইবান্ধায় সাংবাদিকের উপর হামলার প্রতিবাদে সাংবাদিকদের সড়ক অবরোধ

197
Spread the love

শামসুল হক, (স্টাফ রিপোর্টার) গাইবান্ধা : সাংবাদিককে মারপিটের প্রতিবাদে গাইবান্ধা শহরের ডিবি রোডে সাংবাদিকরা এক মানববন্ধন কর্মসূচী পালন করে। পরে ১নং ট্রাফিক মোড়ে কলম ও ক্যামেরা রেখে বিক্ষুব্ধ সাংবাদিকরা সড়ক অবরোধে করে। এসময় পুলিশ প্রশাসনের পক্ষ থেকে সুষ্ঠু বিচার ও আসামিদের অবিলম্বে গ্রেফতারের আশ্বাসের পরিপ্রেক্ষিতে অবরোধ তুলে নেয়া হয়। এই কর্মসুচিতে জেলা ও উপজেলার বিভিন্ন প্রিন্ট এবং ইলেকট্রনিক্স মিডিয়ার সাংবাদিকরা অংশ গ্রহণ করে। মানববন্ধন চলাকালে বক্তব্য রাখেন, গাইবান্ধা প্রেসক্লাবের সভাপতি কেএম রেজাউল হক, সাধারণ সম্পাদক আবু জাফর সাবু, প্রধান উপদেষ্টা গোবিন্দলাল দাশ, দৈনিক করতোয়ার সৈয়দ নুরুল আলম জাহাঙ্গীর, জাতীয় সাংবাদিক সোসাইটি কেন্দ্রীয় কমিটির সহ-সভাপতি ও জনসংকেতের সম্পাদক দীপক কুমার পাল, প্রথম আলোর শাহাবুল শাহীন তোতা, কালের কন্ঠের অমিতাভ দাশ হিমুন, গাইবান্ধা রিপোর্টার্স ইউনিটির সভাপতি রেজাউন্নবী রাজু, বাসসের সরকার মো. শহীদুজ্জামান, ডিবিসির রিক্তু প্রসাদ, বাংলাভিশনের আতিক বাবু, মাইটিভির আফতাব হোসেন, মানবকন্ঠের এবিএম ছাত্তার, যায় যায় দিনের জিল্লুর রহমান পলাশ, এসটিভির জাভেদ হোসেন, হামলার শিকার মিলন খন্দকার, ক্রাউন নিউজের সম্পাদক আবু তাহের প্রমুখ। মানববন্ধনে বক্তারা বলেন, জেলা সাব-রেজিস্ট্রি অফিস সম্প্রতি দুর্নীতির আখড়ায় পরিণত হয়েছে। এখানে কোন সাংবাদিককে ঢুকতে দেয়া হয়না। গাইবান্ধা দলিল লেখক সমিতির সভাপতি নুর এ হাবিব টিটন কিছু ভাড়াটিয়া সন্ত্রাসী সার্বক্ষনিক এই অফিসে রাখেন। সাংবাদিক মিলন খন্দকারকে মারপিটের ঘটনার জন্য দায়ী নুর এ হাবিব টিটনসহ সদর থানায় দায়েরকৃত মামলার সকল আসামিদের ২৪ ঘন্টার মধ্যে গ্রেফতার ও দৃষ্টান্তমুলক শাস্তির দাবি জানান।

প্রসঙ্গত উল্লেখ্য যে, মিলন খন্দকার দুইজন সাংবাদিককে নিয়ে বৃহস্পতিবার (১৫ ডিসেম্বর) দুপুরে নকল নবীশদের কলম বিরতির সংবাদ সংগ্রহ করতে জেলা রেজিষ্টার কার্যালয় চত্বরে যান। এসময় তাকে (সাংবাদিক) দেখে গাইবান্ধা দলিল লেখক সমিতির সভাপতি নুর এ হাবিব টিটন অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করতে থাকে। তিনি সাংবাদিক মিলনের ওপর চড়াও হন। পরে তিনি ও তার সহযোগি লোকজন তাকে বেধরক মারপিট করে। পরে তার দুই সহকর্মী থানায় খবর দিলে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে সাংবাদিক মিলন খন্দকারকে উদ্ধার করে। এই ঘটনায় মিলন খন্দকার বাদী হয়ে গাইবান্ধা দলিল লেখক সমিতির সভাপতি নুর-এ হাবিব টিটনসহ চারজনের নাম উল্লেখ করে ও অজ্ঞাত ৬ থেকে ৭ জনকে আসামি করে সদর থানায় মামলা দায়ের করেন। গাইবান্ধা সাব রেজিষ্ট্রি অফিস ও জেলা রেজিষ্ট্রার অফিস কার্যালয়ে সীমাহীন অনিয়ম-দূর্নীতির সংবাদ প্রকাশ করার পরিপ্রেক্ষিতে সাংবাদিক মিলন খন্দকারের উপর এ হামলা ও মারপিটের ঘটনা ঘটে।


Spread the love