গোবিন্দগঞ্জে মহাসড়কের ওপর ফাঁসিতলা হাটের পূর্বের ঐতিহ্য হারিয়ে ফেলছে

56
Spread the love

ছাদেকুল ইসলাম রুবেল,গাইবান্ধা, প্রতিনিধি : রংপুর বিভাগের প্রবেশ দ্বার গাইবান্ধার গোবিন্দগঞ্জ উপজেলার কামারদহ ইউনিয়নের ঐতিহ্যবাহী ফাঁসিতলাহাট। একযুগ আগেও ছিল হাটটির মনোরম পরিবেশ। সব কিছু জিনিষ বেচাকেনার মধ্যে দিয়ে হাটটি ছিল অনেক বড়। আজ সেই হাটটি ছোট্ট্র হয়ে এসেছে ঢাকা-রংপুর মহাসড়কের ওপর। সপ্তাহে দু’দিন শুক্রবার ও সোমবার নিয়মিত বসে এই হাট। যোগাযোগ ব্যবস্থা ভাল হওয়ায় দেশের বিভিন্ন জেলা শহর থেকে পাইকারী ক্রেতারা এই হাটে এসে ধান, চাউল, আলু, কলাসহ বিভিন্ন মৌসুমী ফসল কৃষকের নিকট থেকে ক্রয় করে সহজেই যানবাহনে করে নিয়ে যাচ্ছে। কিন্তু হাটের সেই ঐতিহ্য আর নেই। হাটের নিজস্ব জায়গা থাকলেও তা হাটের দখলে নেই। বে-দখল করে হাটের জায়গায় পাঁকাঘর নির্মান করে দখলবাজেরা রুম ভাড়া দিয়ে মাসিক ভাড়া নিচ্ছে। অন্য দিকে মালিকনা জায়গায় জমির মালিকেরা পাঁকা ঘড় নির্মান করে রুম ভাড়া দিয়ে অথবা নিজেরাই দেদারছে ব্যবসা করছে। হাটটি সরকারী ভাবে বাৎসরিক সব কিছু মিলিয়ে ছত্রিশ লাখ টাকা ইজারা দেয়। হাটের নিজস্ব জায়গা না থাকায় ইজারাদারকে ফাঁসিতলা হাইস্কুল ও কলেজের মাঠ টাকা দিয়ে জিনিষ ক্রয়-বিক্রয় করার জন্য আলাদা ভাবে নিতে হয়। এতেও জায়গা সংকুলান না হওয়ায় আলু, বেগুন ও মৌসুমী বিভিন্ন ফসলী জিনিষ বিক্রয়ের জন্য চাষীদের মহাসড়কের ওপর বসতে হয়।বিশেষ করে কলা চাষীদের কলা বিক্রয় করার সময় প্রায় দেড় কিলোমিটার রাস্তা জুড়ে মহাসড়কের ওপর যানবাহনের যানজট সকাল থেকে বিকাল পযন্ত লেগেই থাকে। এসময় দুর-দুরন্ত থেকে আসা ওইসব যানবাহনের যাত্রীদের চরম ভোগান্তির শিকার হতে হয়। এছাড়া হাটে আসা পথচারীরা নানা ভোগান্তির শিকার হয়। এমনি ভাবে মহাসড়কে দুর্ঘটনা প্রতিদিন লেগেই আছে। সব মিলিয়ে হাটের পথচারীদের উৎকন্ঠার মধ্যে দিয়ে যাতায়াত করতে হয়। মহাসড়কের ওপর আলুর বস্তা নিয়ে বিক্রির জন্য দাঁড়িয়ে থাকা কৃষক সিহাব মন্ডল। যানজটে আটকে পড়া যানবাহন গুলো তার গাঁ ঘেঁষে ধীর গতিতে চললেও তাকে বিচলিত মনে হলো না। তার সাথে কথা হলে তিনি বলেন, মানুষতো আর ইচ্ছা করে মহাসড়কের উপর বস্তা নিয়ে দাঁড়িয়ে থাকে না তারা বেচাকেনার জন্য আসে।  অনেক কৃষক অভিযোগ করে বলেন হাটের ভিতর জায়গা না থাকায় অনেক কষ্টের ফসল জীবনের ঝুঁকি নিয়ে রাস্তায় দাঁড়িয়ে বিক্রি করতে হয়। এছাড়া হাটের ভিতর পানি সংস্করনের নালা অপরিকল্পিত ভাবে নির্মানের ফলে সামান্য বৃষ্টিতেই ড্রেনেজ গুলো উপচে পড়ে দুর্গন্ধ সৃষ্টি হয় এবং সরকারী ভাবে যে সব গণশৌচাগার করা হয়েছে তা ব্যবহারের অনুপযোগী। হাটে আসা পথচারীরা আগের মতো হাটের স্বাভাবিক পরিবেশ ফিরে নিয়ে আসতে স্থানীয় ও উপজেলা প্রশাসনসহ সংশ্লিষ্ট অধিদপ্তরের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।


Spread the love