ঘুরে দাঁড়াতে কৃষি বিভাগের নানামূখী পদক্ষেপ

53
Spread the love

VLUU L100, M100 / Samsung L100, M100বগুড়া থেকে আল আমিন : বগুড়ার গাবতলী উপজেলা’য় পৌরসভাসহ ১০টি ইউনিয়নে বন্যা’য় আমনধানসহ উঠতি ফসল তলিয়ে যাওয়ায় সাড়ে ৮কোটি টাকার ক্ষতিসাধিত হয়েছে। ফলে কৃষকের ক্ষতি পুষিয়ে ঘুরে দাঁড়ানোর জন্য ইতিমধ্যে কৃষি অফিস গ্রহন করেছেন নানামূখী পদক্ষেপ।
গাবতলী কৃষি অধিদপ্তর সূত্রজানায়, এবছরে গাবতলী উপজেলায় বন্যায় আমনধান রোপনের পর দক্ষিনপাড়া ইউনিয়নে ৯হেক্টর, সোনারায়ে ৬৫হেক্টর, রামেশ্বরপুরে ৩১হেক্টর, নাড়–য়ামালায় ২৫হেক্টর, নেপালতলীতে ২০৩হেক্টর, দূর্গাহাটায় ২৭৭হেক্টর, গাবতলী সদরে ৩৭হেক্টর, মহিষাবানে ৯২হেক্টর, বালিয়াদিঘীতে ১০১হেক্টর, নশিপুরে ১০০হেক্টর ও পৌরসভা এলাকায় ৫হেক্টর জমির ধান ক্ষতি সাধিত হয়েছে। বন্যায় গাবতলীতে মোট ৯শত ৪৫হেক্টর জমিতে লাগানো আমনধানের ক্ষতি হয়। ফলে উপজেলার ১৪হাজার ৮শ ১০জন কৃষকের বন্যায় ক্ষতির পরিমান নির্ধারন করা হয় ৮কোটি ১৪লক্ষ টাকা। শুধু কাগইল ইউনিয়নে বন্যায় ফসলের কোন ক্ষতি হয়নি। এদিকে বন্যায় ক্ষতিগ্রস্থ কৃষকদের ঘুরে দাঁড়ানোর জন্য নানামূখী পদক্ষেপ গ্রহন করেছে কৃষি বিভাগ। এছাড়াও ইতিমধ্যে উপজেলা কৃষি অফিসার আঃ জাঃ মুঃ আহসান শহীদ সরকারের দিকনিদের্শনা মোতাবেক কৃষকদের নাভীজাতের বিনাশাইল, নাজিরশাইল ধান রোপন ও উন্নতজাতের বারি সরিষা-১৪ ও সরিষা-৭ রোপনের জন্য কৃষকদের পরামর্শ ও সার্বিক সহযোগিতা করা হচ্ছে। ফলে কৃষকরা পুনরায় ধান চাষ করেছে। উপজেলা কৃষি সম্প্রসারন কর্মকর্তা নাজমুল হক মন্ডল জানান, আশাকরছি বন্যায় ক্ষতিগ্রস্থ কৃষকরা পুনরায় ধান রোপন, পিয়াজ, সরিষা, টমেটোসহ আগাম শীতকালিন সবজি চাষ করে তাদের ক্ষতি পুষিয়ে নিতে পারবেন। উপসহকারী কৃষি কর্মকর্তা জাহাঙ্গীর আলম, জাহেদুর রহমান জাহিদ ও শাহরিয়ার হাসান জানান, আগামীদিনে সরিষা রোপনের জন্য কৃষকরা আগাম প্রস্তুতি গ্রহন করছে। ফলে বন্যায় ক্ষতিগ্রস্থ কৃষকরা আবারও ঘুরে দাঁড়াতে পারবেন।


Spread the love