জাফলংয়ে আগত পর্যটকরা তিন-তাসের প্রতারণার শিকার

64
Spread the love

gowainghat photo05-11-2015 (2)রফিক সরকার  গোয়াইনঘাট (সিলেট) : পর্যটন নগরী হিসেবে দেশ-বিদেশে পরিচিত একটি নাম সিলেটের গোয়াইনঘাট উপজেলার  প্রকৃতিকন্যা জাফলং। দেশের বিভিন্ন যায়গায় বিভিন্ন নামে পরিচিতি রয়েছে এই পর্যটন কেন্দ্রের। প্রকৃতির অপরূপ সৌন্দর্যের নিদর্শণ পর্যটন কেন্দ্র জাফলংয়ে পর্যটকদের নিরাপদ ভ্রমণের নিশ্চয়তা পর্যটকদের কাছে অত্যান্ত প্রশংসনীয়। সাম্প্রতিক সময়ে পর্যটন কেন্দ্র জাফলংয়ে তিন-তাস নামক জোয়া খেলার প্রতারণায় অতিষ্ট হয়ে পড়েছে আগত পর্যটকরা। পর্যটকদের বিভিন্ন প্রলোভনে ফাঁদে ফেলে তাদের কাছ থেকে নগদ টাকা এবং হাতে থাকা মোবাইল সেটটিও হাতিয়ে নিচ্ছে এই চক্রটি। আর অর্দৃশ্য কারণে আইন শৃঙ্খলা বাহিনী বিষয়টি দেখেও না দেখার ভান করে থাকে। তিন-তাস নামক জোয়া খেলা পরিচালনাকারী চক্রর ফাঁদে পড়ে স্বর্বস্ব হারিয়ে জাফলংয়ে আগত তোষার, নামক এক পর্যটক   প্রায় মাস খানেক পুর্বে এই চক্রের ১২-১৩ জনের নাম উল্লেখ করে সিলেটের পুলিশ সুপার বরাবরে একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন। তারপরও থামছে না এই তিন-তাস নামক জোয়া খেলার হোতাদের দৌরাত্ম্য। ভুক্তভোগী তোষার জানায়  প্রতিদিন দেশ-বিদেশ থেকে জাফলংগে বেরাতে আসে হাজার হাজার পর্যটক সেই সাথে আমারাও সাত, জন বন্ধুমিলে ঘুরতেআসি জাফলংগে আসার পড় এখানে দেখতে পাই কিছু লোকএখানে গুলহয়ে বসে আছে । আমার এক বন্ধু ওখানে গিয়ে দারায় দারানুর পড় তিন-তাস চক্ররের কিছুলোক আমাদের হাতের মোবাইল ও টাকা জোরজুলুম করে কেরে নিয়ে দরেফেলে তিন-তাসে  ।তখন আমাদের করার কিছু ছিলনা নিস্ব হারা হয়ে ফিরেআসি । আসার পড় ১৩ জনের নাম উল্লেখ করে সিলেটের পুলিশ সুপার বরাবরে একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করি। সিলেটের গোয়াইনঘাট উপজেলার জাফলং বল্লাঘাট  সিমান্তে এলাকায় । তিন-তাস নামে চক্ররের এমন প্রতারণার শিকার হচ্ছে,এই এলাকার সাধারণ মানুষ হতে দেশÑবিদেশ থেকে আগত প্রর্যটকরা । নিজে সরজমিনে পরিদরসন কালে দেখা জায় দিনের দুপুরে চলচ্ছে এমন দৃশ্য । প্রজন্ম জাফলংগের সভাপতি মোঃ রিপন, জানায়,ভাই জাফলংগের মানসম্মান বলতে আর কিছু রইল না নিজের চোখে দেখেছি কত আসা ও আনন্দ নিয়ে জাফলংগে বেড়াতে আসে  প্রর্যটকরা,আসার পড়েই তিন-তাস নামের চক্ররের খপ্পরে পড়ে শত শত প্রর্যটক । আর বুকভরা কষ্ট ও চোখের জল নিয়ে ফিরতে হয় বাড়িতে। প্রশাসনের অনেক ভাইদের চোখে পড়েও যেন পড়চ্ছে না । তিন তাস নামক খেলার বিষয়ে গোইনঘাট থানার র্ভাপাপ্ত কর্মকর্তা আব্দুল হাই, বলেন এরকম তাস খেলার বিষয়ে আমি অবগত নয়। তবে এরকম কিছু ঘটে থাকলে আমরা আইনগত ব্যাবস্থা নিবো, এবং বিষটি আমি তদন্ত করে দেখবো । এবিষয়ে চার ক্যাপের কোমপানী কমান্ডার আবুল কালাম বলেন যে, এরকম আমাদের চোখে এখন পরেনি। যদি আমাদের চোখে পড়ে তা হলে আমরা আইন গত ব্যাবস্খা নিব।


Spread the love