ঠাকুরগাঁওয়ে সড়কের নির্মান কাজ টেন্ডারে অনিয়মের অভিযোগ

67
Spread the love

20151020083339আরিফ হাসান, ঠাকুরগাঁও : ঠাকুরগাঁও পীরগঞ্জ সড়কের নির্মান কাজ টেন্ডারে অনিয়মের অভিযোগ পাওয়া গেছে। কাজ বঞ্চিত ঠিকাদারদের অভিযোগ নির্বাহী প্রকৌশলী মোটা অঙ্কের টাকার বিনিময়ে অন্য ঠিকাদারকে কাজ পাইয়ে দিয়েছে। পরে বিক্ষুদ্ধ ঠিকাদারগন মঙ্গলবার সড়ক ভবন ঘেরাও করলে নির্বাহী প্রকৌশলী কৌশলে সটকে পরে। অভিযোগে জানা যায়, ঠাকুরগাঁও হতে পীরগঞ্জ পর্যন্ত ২২ কিঃ মিটার রাস্তা সংস্কার ও উভয় পাশের্^ ৬ ফুট রাস্তা বর্ধিতকরনের জন্য ঠাকুরগাঁও সড়ক ও জনপদ বিভাগ থেকে ৫ কোটি ১৮ লক্ষ ৪৬ হাজার ১৫৮ দশমিক ১৬০ টাকার প্রক্কলন ধরে টেন্ডার আহবান করা হয় যার আইডি নং ২৯৮৪৫। যথারীতি উক্ত কাজের বিপরীতে ১৪টি সিডিউল বিক্রি হয় এবং টেন্ডার ফেলার শেষদিনে ৯ জন ঠিকাদার সিডিউল ড্রপ করে। তন্মধ্যে সঠিকভাবে টেন্ডার দাখিলে ব্যর্থ হওয়ায় একজন ঠিকাদারের সিডিউল বাতিল করা হয়। এদিকে গত সোমবার (১৯ অক্টোবর) ঠাকুরগাঁওয়ের ঠিকাদারগণ সড়ক ও জনপদ বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলীর নিকট এ বিষয়ে জানতে চাইলে নির্বাহী প্রকৌশলী ইনভুলেশন না পাঠানোর অজুহাতে কয়েকদিনের মধ্যে টেন্ডারের লটারী অনুষ্ঠিত হবে বলে জানান। নির্বাহী প্রকৌশলীর কথাবার্তায় সন্দেহ হলে ঠিকাদারগণ দিনাজপুর তত্বাবধায়ক প্রকৌশলীঅফিসে খোঁজ নিয়ে জানতে পান যে, দিনাজপুর সড়ক জনপদ অফিসে গোপনে লটারী করা হয়েছে এবং মোটা অংকের সেলামীর বিনিময়ে একজন ঠিকাদারকে কাজ দেওয়া হয়েছে। এতে ঠাকুরগাঁও জেলার ঠিকাদারদের মাঝে উত্তেজনা দেখা দেয় এবং গত মঙ্গলবার দুপুরে তারা ঠাকুরগাঁও নির্বাহী প্রকৌশলীকে ঘেরাও করে। অবস্থা বেগতিক দেখে নির্বাহী প্রকৌশলী পুলিশে খবর দিয়ে নিজে অফিস থেকে সটকে পরে। পরে ঠিকাদারগণ টেন্ডারের ভুয়া লটারী বাতিলের দাবিতে জেলা প্রশাসক,সড়ক জনপদ বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী সহ বিভিন্ন দপ্তরে লিখিত অভিযোগ করেন। এ ব্যাপারে বিশিষ্ট ঠিকাদার ও জেলা আওয়ামীলীগের নেতা দীপক কুমার রায় জানান, ৩ কোটি টাকা কাজের টেন্ডার ড্রপের পর নিজ অফিসে ঠিকাদারদের সম্মুখে লটারী করার কথা। কিন্তু নির্বাহী প্রকৌশলী মোঃ সোহেল আহম্মদ মোটা অংকের অর্থের বিনিময়ে একজন ঠিকাদারকে কাজ পাইয়ে দেওয়ার জন্য কোন ঠিকাদারকে সংবাদ না দিয়ে গোপনে দিনাজপুর অফিসে লটারী আয়োজন করে এবং একজন ঠিকাদারকে লটারীতে মনোনীত ঘোষনা করে। এ ব্যাপারে ঠাকুরগাঁও সড়ক ও জনপদ বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী মোঃ সোহেল আহম্মদ জানান, টাকা নিয়ে কাউকে কাজ পাইয়ে দেয়া প্রশ্নই আসে না। নিয়ম মেনেই টেন্ডার হয়েছে। কে কাজ পেল আর কে পেলনা সেটা আমার দেখার বিষয় নয়।


Spread the love