ঠাকুরগাঁও কৃষকের শীতের সবজি চাষে ঘুরে দাঁড়াতে চান

88
Spread the love

3_55293মোঃ তোফায়েল ইসলাম ঠাকুরগাঁও : ঠাকুরগাঁওয়ের সদর উপজেলার নারগুন ,গড়য়া, কালিতলা ,চৌখলদীর গ্রামে  কৃষকেরা সবজি ক্ষেত পরিচর্যায় ব্যস্ত. হাতে কোদাল কাধে গামছা  ও নিড়ানি। কারো হাতে শাবল। আবার অনেকের পিঠের পিছনে কীটনাশক দেওয়ার স্পেমেশিন।  এভাবেই  সবজির ক্ষেতে ব্যস্ত সময় পার করছেন ঠাকুরগাঁও জেলার কৃষকরা। চারদিকে সবজির সমারোহ। বাঁধাকপি, ফুলকপি, মুলা, করলা, লালশাক, পালংশাক, শিম, টমেটো, বেগুন, লাউ, শসা, মিষ্টিকুমড়া, বরবটি, ডাটা, চিচিঙ্গা, পটোল, কাঁচামরিচ গাছে ছেয়ে আছে বিস্তীর্ণ মাঠ। শীতকালীন এসব ফসলের অধিকাংশই কৃষক নিয়মিত বাজারজাত করছেন। দামও পাচ্ছেন বেশ ভালো। কেবল বেঁচে থাকার তাগিদে। সামান্য বাড়তি আয়ের আশায় কৃষকেরা সবজি  ক্ষেতেই দিন কেটেয়ে দিচ্ছে । অনেকে আবার টোল বসিয়ে রাতও যাপন করছেন। । ধান চাষে টানা কয়েক বছর লোকসান গুনে এবার তারা শীতের সবজিতেই ঘুরে দাঁড়াতে চাইছেন।  ঠাকুরগাঁও  সদর উপজেলার নারগুন, খোচাবাড়ি, ভাওলার হাট, শিবগঞ্জ, কালিতলা,গড়েয়া, আউলিয়াপুর, ভুলী, দেবীপুর, বেগুনবাড়ি সহ কয়েকটি এলাকায় ঘুরে সবজিচাষি কৃষকের  সঙ্গে কথা বলেই এমন তথ্য জানা গেছে। ঠাকুরগাঁও কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের মতে, চলতি  মৌসুমে ঠাকুরগাঁও জেলায় ৭ হাজার হেক্টর জমিতে সবজি চাষ করা হয়েছে-যা গত বছর চাষ করা হয়েছিল ৬ হাজার হেক্টর জমিতে। কৃষকেরা জানান সবজিচাষে জমি ও পুঁজি দুই-ই কম লাগে। এবার সবজির ফলনও ভালো হয়েছে। তাই নতুন আশার সঞ্চার হয়েছে।   এই সব এলাকার সবজিচাষি তাজিম উদ্দীন রানা,আারিফ, জানান, তিনি এবছর ৬ বিঘা জমিতে সবজিচাষ করেছেন। ফলনও বেশ ভালো হয়েছে। বর্তমান বাজারে সবজির দামও ভালো রয়েছে। তাই তিনি এই সবজিচাষে লাভবান হবেন বলে আশা করে তবে সবজিচাষ করে বেশ ভালো দাম পাচ্ছে। এছাড়াও জেলার সবজি দেশের বিভিন্ন জায়গায় প্রতিদিন ট্রাকযোগে পাঠানো হচ্ছে।জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপপরিচালক আরশেদ আলী জানান, জেলার কৃষকরা ধান চাষে তেমন একটা সুবিধা করতে পারছেন না। তাই চলতি রবি মৌসুমে সবজির আবাদ ব্যাপক হারে করা হয়েছে।


Spread the love