তানোরে মাদক ব্যবসায়ীর হামলায় নারী পুলিশ আহত’গ্রেফতার ১

59
Spread the love

রাজশাহী থেকে নাজিম হাসান : রাজশাহীর তানোরে মাদকবিরোধী অভিযানের সময় ১৩০ পিচ ইয়াবা ও ৩০ গ্রাম হিরোইনসহ মাদক সম্রাটটকে আটক করেছে পুলিশ। আটকের সময় ঘটনাস্থলেই মাদক ব্যবসায়ী পরিবারের হামলায় এক নারী পুলিশ কন্সটেবল আহত হয়েছেন। আহত ওই কন্সটেবলকে স্থানীয় ওষুধ ফার্মেসীতে নিয়ে প্রাথমিক চিকিৎসা দেয়া হয়েছে। গত সোমবার দিবাগত রাত সাড়ে ১০ টার দিকে তানোর পৌর এলাকার ঠাকুরপুকুর গ্রামে হক সাহেবের বাড়িতে থানা পুলিশ মাদকবিরোধী অভিযান চালানোর সময় এ হামলার ঘটনা ঘটে। মামলা এজাহার ও পুলিশ সূত্রে জানা যায়, সোমবার দিবাগত রাতে নবাগত তানোর থানার (ওসি) আব্দুস সালামের নেতৃত্বে তানোর ঠাকুরপুকুর গ্রামে হক সাহেবের বাড়িতে মাদকবিরোধী অভিযান চালায় পুলিশ। এসময় মাদক সম্রাট হক সাহেবের কাছ থেকে ১৩০ পিচ ইয়াবা ও ৩০ গ্রাম হিরোইনসহ তার স্ত্রী, মেয়ে ও ছেলে বউকে আটক করা হয়। আটকের পর হক সাবেক পুলিশের ওপর হামলা করে। পরে এক নারী পুলিশের হাতে হক সাহেবের স্ত্রী ও মেয়ে কামড় দিয়ে কিলঘুষি মেরে পালিয়ে যায়। ঘটনার সময় উপজেলার আনসার ভিডিপি কমান্ডার সেকেন্দার আলী ও সদস্য রিয়াজ উদ্দিন মাদক সম্রাটদের পালাতে সহায়তা করে। পরে উপজেলা আনসার ভিডিপি সদস্য রিয়াজ উদ্দিন থানায় গিয়ে ওই মাদক সম্রাটদের পক্ষ নিয়ে পুলিশের ওপর চড়াও হয়। এক পর্যায়ে পুলিশ তাকে গ্রেফতার করে থানা হাজত ঘরে বন্দি করে রাখে। এঘঁটনা নিয়ে উপজেলা আনসার ভিডিপি কমান্ডার সেকেন্দার আলী জানান, আটক আনসার ভিডিপি সদস্য রিয়াজ উদ্দিনকে ছেড়ে দেবার জন্য সুপারিশ করা হয়। একারণে থানার ওসি ক্ষিপ্ত হয়ে তার বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেছেন। তিনি মাদকের সঙ্গে সম্পৃক্ত নয়। এ ব্যাপারে মামলার তদন্তকারী অফিসার থানার উপপরিদর্শক (এসআই) রুবেল হোসেন জানান, ঘটনার সময় মাদক সম্রাটদের পালাতে সেকেন্দার আলী সহায়তা করেছেন। এছাড়া সেকেন্দার মাদক ব্যবসার সঙ্গে বহুদিন ধরে প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষ ভাবে জড়িত। সেকেন্দার মাদক ব্যবসায়ীদের কাছ থেকে প্রতিনিয়ত চাঁদা আদায় করে বলে পুলিশের কাছে তথ্য রয়েছে। এসব কারণে সেকেন্দারের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করা হয়েছে।


Spread the love