তাহিরপুর সীমান্তের উত্তর শ্রীপুর ইউপি নির্বাচনে নতুন পুরানো প্রার্থীদের দৌড় ঝাঁপ

83
Spread the love

তাহিরপুর (সুনামগঞ্জ) প্রতিনিধি : সুনামগঞ্জের তাহিরপুর উপজেলায় উত্তর শ্রীপুর ইউপি নির্বাচনে সাবেক চেয়ারম্যান,নতুন ও বর্তমান চেয়ারম্যানদের নিয়ে তমুল আলোচনা,সমালোচনা বিরাজ করছে। নির্বাচন কমিশন দলীয় প্রর্তীকে নির্বাচনের ঘোষনায় বেশি উজ্জিবিত উঠছে বিএনপি,আ,লীগ ও জামায়াত সমর্থিত প্রার্থীরা। দলীয় সমর্থন না পেলে স্বতস্ত্র প্রার্থী হবেন অনেকই। বাজারে চায়ের দোকান গুলো যেন আলোচনার প্রধান কেন্দ্র বিন্দু হিসাবে পরিনত হয়েছে। আর ভোটারদের বাড়ির আশ পাশ ও বাজার গুলোতে প্রার্থীদের পোষ্টারে সয়লাব হয়ে গেছে। ইউনিয়নের প্রতিটি ওয়ার্ডে প্রার্থী ও তাদের কর্মীদের পদচারনায় মুখরীত সকাল থেকে মধ্য রাত পর্যন্ত। দিচ্ছেন উন্নয়নের নানান প্রতিশ্রুতির ফুল ঝুড়ি। প্রতিশ্রুতি দিলে কি হবে এলাকায় এবার তেমন কোন উন্নয়ন হয় নি বলে অভিযোগ রয়েছে এলাকাবাসীর। তাই সময় আর সুযোগ বুঝে সঠিক প্রার্থীকে নির্ধারন করে তাদের মূল্যবান ভোট দিবেন এবার। ভোটের বেলায় নেতা কর্মী আর প্রার্থীদের মিষ্টি কথার কোন কমতি থাকে না নির্বাচন শেষে জয়ী হলেই জনগনের কাছে দেওয়া প্রতিশ্রুতির চিহ্ন পাওয়া যায় না। আর এক চেয়ারম্যান বার বার নির্বাচিত হলে এলাকার কোন উন্নয়ন হয় না বলে মন্তব্য করেন এলাকার নতুন প্রার্থী ও সচেতন মহল। তাই এবার চেয়ারম্যানের পরিবর্তনের মাধ্যমে নতুন মুখের আভাস দিচ্ছেন ভোটারা। কর্মঠ,শিক্ষিত,যুগ্যতা সম্পন্ন প্রার্থী নির্বাচনে প্রার্থী হবার আহবান জানান এলাকাবাসী। না হলে যে লাউ সেই কদু পুরনো প্রার্থীদের মাঝে হবে তুমুল লড়াই। আবার সেই জোড়া তালি নামের উন্নয়ন। সঠিক ও যোগ্য প্রার্থী না পেলে বর্তমান চেয়ারম্যান হাজী আবুল হোসেন খাঁ কেই বর্শীয়ান আ,লীগ নেতা ৪বার চেয়ারম্যন হিসাবে নির্বাচিত অথবা সাবেক প্রতিদন্ধী কেই নির্বাচিত করবেন ভোটারগন। অশিক্ষিত,যোগ্যতা ও জ্ঞানহীন চেয়ারম্যান দিয়ে কোন উন্নয়ন হয় না এলাকার। তাই এবার জনগন চাইছে শিক্ষিত,যোগ্য প্রার্থী নির্বাচনের। যে সব সময় এলাকাবাসীর সুখে,দুঃখে পাশে থাকবে আর রাস্তা-ঘাট,স্কুল উন্নয়ন সহ সকল ক্ষেত্রে যার সাহায্য সহযোগীতা পাওয়া যাবে সে দিক বিবেচনা করে তাকেই দলীয় সমর্থন দেবার জন্য দলীয় শীর্ষ নেতাদের প্রতি আহবান জানান স্থানীয় ভোটারগন। এবার নির্বাচন হবে দলীয় প্রতীকে তাই দলীয় সমর্থন এবার প্রধান হাতিয়ার। দলীয় হাতিয়ার পেলেই জয়ী হবার সুযোগ তাই যে ভাবেই হউক দলীয় সমর্থন পাওয়ার জন্য নাম প্রকাশ না করে শীর্ষ স্থানীয় নেতাদের কাছে চালিয়ে যাচ্ছে জোরালো লবিং নতুন,পুরাতন ও বর্তমান চেয়ারম্যানরা। জানাযায়-দলীয় সমর্থন পাওয়ার জন্য অনেকেই টাকা বিনিময়ে হলেও পেতে চাইছে দলীয় সমর্থন। কারন এই ইউনিয়নে একবার চেয়ারম্যান নির্বাচিত হতে পারলেই পেছনে তাকাতে হয় না সোনার হরিণ হাতে পাওয়ার আনন্দ। এই ইউনিয়নে আছে সীমান্তের মদ,গাজা,হেরোইন,কয়লা,চুরাপাথর চোরাচালান সহ  চাদাঁবাজির মাধ্যমে অবৈধ টাকা হাতিয়ে নিয়ে বনে যায় রাতা রাতি আঙ্গুল ফুঁলে গলা গাছ। আর এলাকার অসহায়,নীরহ,অভাব গ্রস্থ জনগন কে ভুলিয়ে ভালিয়ে নিজের মত করে চালানো যায়। ফলে হাতের মুটোয় যেন চলে আসে আলাদিনের আচার্য প্রদীপ। এ ইউনিয়নে পরিষদে চেয়ারম্যান প্রার্থীরা হল-বর্তমান চেয়ারম্যান হাজী আবুল হোসেন খাঁ (আ,লীগ),সাবেক চেয়ারম্যান আমির উদ্দিন (আ,লীগ),জয়ধর মিয়া (আ,লীগ),মোঃ রুহুল আমিন (বিএনপি),ডাঃসামছুদ্দিন (বিএনপি),হাজী সামছুল হক(বিএনপি),হাজী আলী হায়দার(বিএনপি),মোওলানা খায়রুল বাসার প্রমুখ। ইউনিয়নের ভোটার সংখ্যা ২৬,৩২৮ জন,পুরুষ ভোটার-১৩৪৪৭ জন, মহিলা ভোটার-১২৮৮১জন।


Spread the love