নন্দীগ্রামে রণবাঘা হাটের জায়গায় ফের অবৈধ স্থাপনা

68
Spread the love

17-03-2016NP copyনন্দীগ্রাম (বগুড়া) প্রতিনিধি : বগুড়ার নন্দীগ্রামে প্রশাসনের নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে রণবাঘা হাট-বাজারের সরকারি জায়গায় অবৈধভাবে দখল করে ফের অবৈধ স্থাপনা নির্মাণ করছে প্রভাবশালীরা। হাটের ইজারাদার ও প্রভাবশালীদের ছত্রছায়ায় হাটের জায়গা দখল করে রাজমিস্ত্রি (শ্রমিক) খাটিয়ে ইটের ১০ইঞ্চি দেয়াল-কলম দিয়ে পাকা দোকানঘর নির্মাণ করছেন ওই এলাকার গোপাল চন্দ্র নামের এক দর্জি। সরকারি জায়গায় অবৈধ স্থাপনা নির্মাণের খবর পেয়ে গত মঙ্গলবার দুপুরে থানার ওসি হাসান শামীম ইকবালের নির্দেশে এসআই আব্দুল বারী হোসাইনী সঙ্গীয় ফোর্স নিয়ে রণবঘা হাটের সরকারি জায়গায় স্থাপনা নির্মাণ কাজ বন্ধে কঠোর হুশিয়ারি উচ্চারণ করেন। তাৎক্ষনিকভাবে অবৈধ স্থাপনা নির্মাণকাজ বন্ধ করে দেওয়া হয়। এরপর কয়েকঘন্টা যেতে না যেতেই ফের নির্মাণ কাজ শুরু করেছে। সরেজমিনে গিয়ে দেখা গেছে, পুলিশ প্রশাসনের কঠোর নিষেধাজ্ঞা সত্বেও উপজেলার রণবাঘা হাট-বাজারের জায়গায় ইট দিয়ে তরিঘরি করে দোকান ঘর নির্মাণ করছেন গোপাল দর্জি। সম্প্রতি রণবাঘা হাটের জায়গায় আশরাফ আলী, দুলাল হোসেন ও মটরি খাতুন টিনদিয়ে দোকানঘর নির্মাণ করেছেন। প্রশাসনের নজর না থাকায় হাটজুড়ে প্রায় অর্ধশত অবৈধ স্থাপনা গড়ে উঠেছে। হাটের জায়গায় উপজেলার পরিষদের দ্বায়িত্বে রয়েছে। ইট দিয়ে স্থায়ী পাকা দোকান ঘর নির্মাণের মহোৎসব চলছে। অথচ সেদিকে দেখারমত কেউ নেই। হাট-বাজারের জায়গায় অবৈধ স্থাপনা গড়ে তোলায় রাজস্ব থেকে বঞ্চিত হচ্ছে সরকার। উপজেলার হাট-বাজারের জায়গা দখলের পাশাপাশি বগুড়া-নাটোর মহাসড়কের জায়গায় ইট দিয়ে স্থায়ীভাবে পাকা ও টিনসেট দোকানঘর নির্মাণ করলেও আজতক পর্যন্ত অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদের এগিয়ে আসেনি প্রশাসন। অবৈধ দখলের উচ্ছেদ দাবিতে সওজ বিভাগ ও উপজেলা নির্বাহী অফিসারের নিকট লিখিত ও মৌখিক অভিযোগ করা হলেও যথাযথ আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহন না করায় বাড়ছে অবৈধ স্থাপনা। এসকল অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদের দাবি জানিয়েছেন এলাকাবাসি। এপ্রসঙ্গে উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট আনোয়ার ইমাম বলেন, কেউ যদি সরকারি জায়গা দখল করে অবৈধ স্থাপনা গড়ে তোলে, ভ্রাম্যমান আদালতের মাধ্যমে তাদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।


Spread the love