ফিফা বিশ্বকাপ বাছাইপর্ব বাংলাদেশ-জর্ডান আজ মুখোমুখি

97
Spread the love

image_2082_263245 স্পোর্টস রিপোর্টার : ২০১৮ রাশিয়া বিশ্বকাপ এবং ২০১৯ এএফসি এশিয়া কাপের বাছাইপর্বের ম্যাচে শক্তিশালী জর্ডানের মুখোমুখি হচ্ছে আজ স্বাগতিক বাংলাদেশ। অস্ট্রেলিয়ার সঙ্গে ম্যাচ খেলে দেশে ফেরার পর বিশ্রাম না নিয়েই আবার অনুশীলনে নেমে পড়ে বাংলাদেশ। গত তিন দিন ধরে কঠোড় অনুশীলন করেছি সবাই। প্রস্তুত করেছি জর্ডানের বিপক্ষে ভাল কিছু করার। কথাগুলো বলেন বাংলাদেশ জাতীয় ফুটবল দলের অধিনায়ক মামুনুল ইসলামের। আজ মঙ্গলবার বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামে বাছাইপর্বে বি গ্রুপের হোম ম্যাচে বিকেল ৫টায় প্রতিপক্ষ জর্ডানের বিপক্ষে খেলবে বাংলাদেশ। খেলাটি সরাসরি সম্প্রচার করবে চ্যানেল নাইন। গ্যালারির টিকেট এবং ভিআইপি টিকেটের মূল্য যথাক্রমে ৫০ এবং ১০০ টাকা। গতকাল বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামে ম্যাচের আগে শেষবারের মতো পালাক্রমে অনুশীলন করে বাংলাদেশ এবং জর্ডান ফুটবল দল।
মাত্র পাঁচদিনের ব্যবধানেই আবারও মাঠে নামতে হচ্ছে সোহেল-এনামুলদের। তবে পার্থক্য হলো এবার ম্যাচটা হচ্ছে ঘরের মাটিতে। কিন্তু প্রতিপক্ষ অস্ট্রেলিয়ার চেয়ে শক্তিমত্তায় খুব একটা পিছিয়ে নেই। জর্ডানের ফিফা র‌্যাঙ্কিং ৯১, আর বাংলাদেশের ১৭৩। গতকাল ম্যাচ উপলক্ষ্যে এক সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয় বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশনের (বাফুফে) কনফারেন্স রুমে। এতে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ দলের কোচ লোডভিক ডি ক্রু্ইফ, অধিনায়ক মামুনুল ইসলাম, ম্যানেজার আমিরুল ইসলাম বাবু, জর্ডান দলের বেলজিয়ামের কোচ পল পুট, সহ অধিনায়ক ও গোলরক্ষক আহমাদ এ.এম. নওয়াস, বাফুফের সিনিয়র সহসভাপতি আব্দুস সালাম মুর্শেদী এবং বাফুফের সাধারণ সম্পাদক আবু নাইম সোহাগ।
সংবাদ সম্মেলনে বাংলাদেশ দলের ডাচ্ কোচ ক্রুইফ বলেন, আজ আমরা জর্ডানের মোকাবেলা করবো। এর আগে অস্ট্রেলিয়ার সঙ্গে খেলেছি। তারা খুব শক্ত প্রতিপক্ষ ছিল। তারা প্রফেশনাল। মানসিক এবং শারিরীক দিক থেকে তারা শক্তিশালী।। জর্ডানও তাদের চেয়ে খুব একটা পিছিয়ে নেই। তারাও ভাল দল। কালকের ম্যাচটাও শক্ত। যারা ভালো খেলবে তারা ফল পাবে। দলে একাধিক ভাল ফুটবলার আছে। পেশাদার দল। গুড ফুটবল আইডিয়া আছে তাদের। গত বছর বিশ্বকাপ বাছাইয়ের প্লে-অফে দুভার্গ্যজনকভাবে তারা উরুগুযের কাছে হেরে যায়। আমরা চেষ্টা করব তাদের বিরুদ্ধে শ্রেয়তর ফুটবল খেলতে। এটা আমাদের জন্য বড় চ্যালেঞ্জ। তাদের সঙ্গে খেলাটা হবে এক বিরাট অভিজ্ঞতা। দেখা যাক, কি হয়। অস্ট্রেলিয়ার ম্যাচে যে ভুলগুলো হয়েছিলো এবার তা পরিহার করতে হবে। প্রতিপক্ষ শক্তির বিচারে অনেক এগিয়ে। তারপরও আজকের ম্যাচে ভাল ফলের প্রত্যাশা মামুনুলের, ঘরের মাঠে শেষ তিন-চারটা ম্যাচ আমরা খুব ভাল খেলেছি। কিন্তু বল নিয়ন্ত্রণে এগিয়ে থেকেও কিরগিজস্তানের সঙ্গে দুর্ভাগ্যজনকভাবে হেরেছি। সমর্থকরা আমাদের বড় শক্তি। কম গোল খাওয়া বা বেশি গোল দেয়া নয়। আমরা চাই আমাদের সেরা পারফরম্যান্সটা উপহার দিতে। গত ম্যাচে আমাদের বল রিসিভে কিছু সমস্যা ছিলো। আশা করি এই ম্যাচে তা হবে না। অস্ট্রেলিয়ার ম্যাচ শেষে মামুনুল যেটা উপলব্ধি করেছেন তাদের ভুলটা হলো ডিফেন্স আর মিডফিল্ডের মধ্যে সমন্বয়ের অভাব হলেই আমরা গোল খাই। কোচ এ কদিন এ বিষয়গুলোর দিকেই বেশি নজর দিয়েছেন। নিজেদের শতভাগ দিতে পারলে ইতিবাচক ফলই আসবে। অস্ট্রেলিয়ার ম্যাচে যেমন ৯০ মিনিট লড়াই করার মানসিকতা ছিল, সেটি ধরে রাখতে চান ক্রুৃইফ, ছেলেরা মোটেই ভীত নয়। অস্ট্রেলিয়া শারীরিক ভাবে অনেক শক্তিধর ছিল, জর্দানও তেমনই। অস্ট্রেলিয়ার সঙ্গে ম্যাচে প্রথম ৩০ মিনিট আমাদের সমন্বয় ছিল না। আশা করি এই ম্যাচে সেটি হবে না। ক্রুইফ আরও জানান, তার দলের এ্যাটাকিং মিডফিল্ডার হেমন্ত ভিনসেন্ট বিশ্বাস ইনজুরিতে পড়ায় জর্দানের বিরুদ্ধে খেলতে পারবেন না, হেমন্তকে কমপক্ষে দশ দিন বিশ্রামে থাকতে হবে।
জর্দানের কোচ পল পুট বলেন, ম্যাচের জন্য প্রস্তুত আছে আমার দলের ছেলেরা। র‌্যাঙ্কিং এর পার্থক্যটাকে বড় করে দেখছি না। যারা মাঠে ভাল খেলবে, তারাই জিতবে। বরং বাংলাদেশকে সমীহই করছি। যেহেতু তারা খেলবে ঘরের মাঠে, তাই ম্যাচটা হবে বেশ কঠিন। তাছাড়া বৃষ্টি হলে বাংলাদেশ দলই সুবিধা পাবে বেশি। তবে আমরা এই ম্যাচ থেকে তিন পয়েন্ট নিয়েই ঘরে ফিরব বলে আত্মবিশ্বাসী। টাফ গেমস হবে এটা নিশ্চিত। উল্লেখ্য, জর্ডানের বিরুদ্ধে এর আগে কখনই খেলেনি বাংলাদেশ।
জর্ডানের পর বিশ্বকাপ বাছাইয়ে বাংলাদেশ এ্যাওয়ে ম্যাচে কিরগিজস্তানের মুখোমুখি হবে ১৩ অক্টোবর। এরপর ১২ নভেম্বর তাজিকিস্তান (এ্যাওয়ে ম্যাচ), ১৭ নভেম্বর অস্ট্রেলিয়া (হোম ম্যাচ)। বাছাইপর্বে বাংলাদেশ শেষ ম্যাচে মুখোমুখি হবে জর্দানের (এ্যাওয়ে) বিপক্ষে। আগামী বছর ২৪ মার্চ অনুষ্ঠিত হবে ম্যাচটি। বিশ্বকাপ বাছাইয়ে বাংলাদেশ রয়েছে গ্রুপ বিতে। বাংলাদেশের গ্রুপে রয়েছে অস্ট্রেলিয়া, তাজিকিস্তান, কিরগিজস্তান এবং জর্দান। দুই ম্যাচে ছয় পয়েন্ট নিয়ে গ্রুপের শীর্ষে রয়েছে অস্ট্রেলিয়া। দ্বিতীয় অবস্থানে রয়েছে জর্দান। তাদের সংগ্রহ চার পয়েন্ট। তাদের থেকে এক ম্যাচ বেশি খেলে চার পয়েন্ট পেয়ে তৃতীয় স্থানে কিরগিজস্তান। দুই ম্যাচ খেলে ১ পয়েন্ট নিয়ে চতুর্থ অবস্থানে রয়েছে তাজিকিস্তান। তাদের থেকে এক ম্যাচ বেশি খেলে সমান পয়েন্ট নিয়ে তলানীতে রয়েছে বাংলাদেশ।
উল্লেখ্য, এর আগে বিশ্বকাপ বাছাইয়ে তিনটি ম্যাচ খেলেছে লাল-সবুজরা। এর দুইটি ঘরের মাটিতে। গত ১১ জুন হোম ম্যাচে কিরগিজস্তানের সঙ্গে ৩-১ গোলে হারে বাংলাদেশ দল। পরেরটিও হোম ম্যাচ। ১৬ জুন তাজিকিস্তানের বিপক্ষে ওই ম্যাচে চমৎকার খেললেও ১-১ গোলে ড্র করে তারা। এই প্রথমবারের মতো জর্ডানের মুখোমুখি হবে বাংলাদেশ। এশিয়ান ফুটবলে এখনো পর্যন্ত যে চারটি দেশের বিপক্ষে বাংলাদেশ কখনো মাঠে নামেনি, তাদের একটি হচ্ছে এই জর্ডান (অপর তিনটি দেশ ইরাক, ওমান ও তিমুর লেসথে)। অচেনা এই প্রতিপক্ষের বিপক্ষে ঘরের মাঠের এই চ্যালেঞ্জ রোমাঞ্চই ছড়াচ্ছে বাংলাদেশের ফুটবলারদের মনে। জর্ডান জাতীয় ফুটবল দলকে অভিহিত করা হয় নাশামা নামে। বেলজিয়ান কোচ পল পটের অধীনে এই দলটি সম্প্রতি বিশ্বকাপ বাছাইপর্বে কিরগিজস্তানের বিপক্ষে গোলশূন্য ড্র করেছে। প্রথম ম্যাচে অবশ্য তাজিকিস্তানকে ৩-১ গোলে হারিয়েছিল তারা। জর্ডান বিশ্বকাপ বাছাইপর্বের দুটো ম্যাচ বাদে আন্তর্জাতিক প্রীতি ম্যাচ খেলেছে আরও চারটি। এই ম্যাচগুলোর মধ্যে কুয়েত ও লেবাননের বিপক্ষে তারা ড্র করেছে যথাক্রমে ২-২ ও গোলশূন্যভাবে। হেরেছে সৌদি আরব (২-১) ও সিরিয়ার বিপক্ষে (১-০)। তবে এই ফলে খুব একটা উল্লসিত হওয়ার কিছু নেই। সৌদি আরব, সিরিয়া, কুয়েত, লেবানন শক্তিমত্তায় এই দেশগুলো বাংলাদেশের চেয়ে অনেক অনেক এগিয়ে ফুটবলে। এখন দেখার বিষয়, বাংলাদেশের বিপক্ষে আল নাশামা খ্যাত জর্দানের ম্যাচের ফলাফল কি হয়।


Spread the love