ফিল্মি কায়দায় বরের গাড়ি থেকে নববধূ ছিনিয়ে নিলো দুর্বৃত্তরা

88
Spread the love

100416_f1নারায়ণগঞ্জ প্রতিনিধি : নারায়ণগঞ্জের আড়াইহাজারে বরের গাড়ির বহরে হামলা চালিয়ে ফিল্মি কায়দায় অস্ত্রের মুখে নববধূকে তুলে নিয়ে গেছে একদল সন্ত্রাসী। এ সময় সন্ত্রাসীদের হামলায় বরসহ ৫ জন আহত হয়েছে। এ চাঞ্চল্যকর ঘটনাটি ঘটেছে শুক্রবার রাতে আড়াইহাজার উপজেলার সাতগ্রাম ইউনিয়নের রসুলপুর গ্রামে। এ ঘটনায় গতকাল কনের বাবা বাদী হয়ে মামলা করেছে। আড়াইহাজার থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) সোহরাব জানান, শুক্রবার ছিল উপজেলার নোয়াগাঁও চৌধুরী বাড়ির আ. লতিফের মেয়ে সুবর্ণা আক্তার (১৮) এর সঙ্গে রূপগঞ্জ উপজেলার দাউদপুর পুটিয়া গ্রামের জহিরুল হকের ছেলে নাদিমের (২৫) বিয়ের দিন। বিয়ের অনুষ্ঠান শেষে সন্ধ্যায় কনের বাড়ি থেকে প্রাইভেটকার যোগে বর পক্ষ নববধূকে নিয়ে যাচ্ছিল। পথে রসুলপুর নামক স্থানে উপজেলার টেকপাড়া গ্রামের হাতেম আলীর ছেলে মোফাজ্জল (২৫), জামাল উদ্দীনের ছেলে আলমগীর (২০) ও ইসমাইলের ছেলে রাকিবসহ ৮-৯ জন সন্ত্রাসী ২টি সিএনজি যোগে এসে বরযাত্রীর গাড়ির গতিরোধ করে। এবং জোরপূর্বক প্রাইভেটকারের ভেতর থেকে নববধূকে তুলে নিয়ে মাধবদীর দিকে চলে যায়। তার পর থেকে নববধূর কোন খোঁজ পাওয়া যাচ্ছে না। এদিকে কনের বাবা আবদুল লতিফ বাদী হয়ে আড়াইহাজার থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন। আড়াইহাজার থানার ওসি সাখাওয়াত হোসেন জানান, নববধূকে উদ্ধারের জন্য বিভিন্ন স্থানে অভিযান চলছে। নববধূ সুবর্ণার বাবা আবদুল লতিফ জানান, গত ঈদের দিন নামাজের পর একটি তুচ্ছ ঘটনায় এই সন্ত্রাসীরা তাকে কুপিয়ে মারাত্মক ভাবে আহত করে। এ ঘটনায় তিনি সন্ত্রাসীদের বিরুদ্ধে কোর্টে মামলা করার পর থেকে সন্ত্রাসীরা মামলা তুলে নেয়ার জন্য তাকে হুমকি দিয়ে আসছিল। আবদুল লতিফ আরও জানান, গত ১৫ দিন আগে রূপগঞ্জের পুটিনা এলাকার জহিরুলের ছেলে নাজিম উদ্দিনের সঙ্গে উভয় পরিবারের সম্মতিতে শুক্রবার বিয়ের দিন ধার্য হয়। বিয়ের কার্য সম্পন্ন্ন করতে গিয়ে সন্ধ্যা হয়ে যায়। সন্ধ্যা ৬টার সময় বরযাত্রীর লোকজন নববধূকে নিয়ে যাওয়ার সময় বাঘবাড়ি আড়াইহাজার সড়কের রসুলপুর এলাকায় পৌঁছালে টেকপাড়ার হাতেম আলীর ছেলে মোফাজ্জল ও তার সহযোগীরা গাড়ির গতিরোধ করে। এ সময় বরের বহনকারী প্রাইভেটকার থেকে নাজিমকে টেনে হেঁচড়ে বের করে বেধড়ক পিটুনি দেয়। এবং দেশীয় অস্ত্র দিয়ে বরের লোকজনকে মারধর করতে থাকে। আতঙ্কে আশপাশের লোকজন কিছু বুঝে উঠার পূর্বেই নববধূ সুবর্ণাকে জোরপূর্বক তুলে নিয়ে যায়। সূবর্ণার সঙ্গে ৮ ভরি সোনার বিভিন্ন অলঙ্কার ছিল বলে তিনি জানান। সাতগ্রাম ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ওদুদ মাহমুদ জানান, অভিযুক্ত টেকপাড়ার বখাটে মোফাজ্জল সদ্য বিবাহিত সূবর্ণাসহ বিভিন্ন স্কুলছাত্রীকে রাস্তাঘাটে প্রায়ই উত্ত্যক্ত করতো। নেশাগ্রস্ত হয়ে বিভিন্ন লোকজনকে শারীরিক মানসিক নির্যাতনের অভিযোগে তার বিরদ্ধে একাধিক সালিশ করে সতর্ক করা হয়েছে।


Spread the love