বগুড়ার গাবতলীতে শীতকালিন সবজি’র বাম্পার ফলন

87
Spread the love

VLUU L100, M100  / Samsung L100, M100

বগুড়া থেকে আল আমিন মন্ডল : বগুড়ার গাবতলী উপজেলা’য় শীতকালিন সবজির বাম্পার ফলন হয়েছে। তবুও হাট বাজারে কমছে না সবজি’র দাম। বিভিন্ন হাটবাজার ঘুরে দেখাগেছে, প্রতিআড়াইশ গ্রাম (এক পোয়া) কাঁচা মরিচ ১৫টাকা, শিমের পোয়া ১০টাকা, পোটলের পোয়া ৫টাকা, বেগুন ৮টাকা পোয়া, বরবটি ৫টাকা, টমেটো ২০টাকা ও করল্লার পোয়া ১০টাকা। তবে কিছু পণ্য ওজনে ভারি হওয়া ও তুলনামূলক কম দাম হওয়ার কারনে এখনও কেজি হিসাবে বিক্রি হচ্ছে। বাজারে প্রতি কেজি পেঁপে ১৫থেকে বাজার ভেদে ২০টাকা। আলুর কেজি ২৫টাকা। মাঝারি ধরনের লাউ বিক্রি হচ্ছে ২৫টাকা পিস, ৫০০গ্রাম ওজনের বাঁধাকপির দাম ২০টাকা, ফুলকপি কেজী ২০টাকা। নতুন করে আরেক দফা পিয়াজের দাম বৃদ্ধি পেয়ে বিক্রি হচ্ছে ৬০টাকা কেজি। এসব এলাকার ব্যবসায়ীরা কেজির স্থলে পোয়ার দাম বলছে। সবজির দাম বৃদ্ধির কারণে কম আয়ের মানুষ সবজি কেনার পরিমাণ কমিয়ে দিয়েছে। ফলে কম করে খাচ্ছে সবজি। এ কারণে কেজির তুলনায় পোয়া বা গ্রাম মুখস্ত হয়ে গেছে। তবে বাজারগুলোতে দাম যতই বেশি হোক ব্যবসায়ীরা বলছে কেজির দাম। কিন্তু কেন সবজির দাম বাড়ছে জানে না বিক্রেতারা। এ ব্যাপারে সবজি বিক্রেতা হানিফ মিয়া জানান, কেন সবজির দাম বাড়ছে জানি না। আগে অনেকবার বলেছি, বন্যা ও অতিবৃষ্টির কারণে সবজির দাম বেড়েছে। তবে লোকজন শাক-সবজি কম খায়। তাই দামটা একটু বেশী। দাম বৃদ্ধির ফলে কম আয়ের মানুষ সবজি কম কিনছে বলেও জানান তিনি। তবে এখন সবজির চাহিদা বেড়েছে বিধায় দাম বেশি। সবজির পাশাপাশি শাকের দামও বেড়েছে। প্রতি আঁটি লাউ শাক ৮টাকা, যা গত সপ্তাহে ৫টাকায় বিক্রি হয়েছে। লালশাক ও সবুজ শাকের আঁটি ৫টাকা থেকে বেড়ে ৮টাকা। অপরিবর্তিত রয়েছে পালং শাক ৫টাকা ও পুঁইশাক ৫থেকে ৭টাকা। শীতের সবজি বাজারে আসলেও দাম কমেনি বলে জানান গাবতলী কাগইলের মীরপুর বাজারের সবজি বিক্রেতা সুমন মিয়া। গতসপ্তাহ দাম বেড়েছে শাক-সবজির। দাম বাড়ার কারণ কি ? জবাবে ঐ এলাকার সবজি বিক্রেতা আব্দুল জলিল টুকু বলেন, মানুষ এখন মাছ-মাংস কম খাচ্ছে, ফলে সবাই বেশী করে সবজি খাচ্ছে। তাই চাহিদা বেড়েছে। কিন্তু হাটবাজারে শীতকালিন সবজির সরবরাহ বেড়েছে। তবে কমছে না সবজির বাজার। গাবতলী কাগইলের মীরপুর গ্রামে শীতকালিন সবজির বাম্পার ফলন হয়েছে। সবজির ক্ষেত পরিদর্শন ও সবসময় আদর্শ কৃষকদের কৃষি তথ্য ও পরামর্শ দিচ্ছেন উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তা জাহেদুর রহমান জাহিদ ও মোছাঃ আকতার জাহান। ফলে উত্তর গাবতলীতে সবজি’র বাম্পার ফলন হয়েছে।


Spread the love