বগুড়ার ধুনটে ছেলের লাশ ফেলে বাবার পলায়ন

76
Spread the love

julonto-lash1ধুনট বগুড়া প্রতিনিধি: বগুড়ার ধুনট উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের জরুরি বিভাগে লিখন মিয়া (১০) নামে এক শিশুর মৃতদেহ রেখে পালিয়েছেন শিশুটির বাবা জিল্লুর রহমান। বৃহস্পতিবার বেলা ১১টার দিকে এ ঘটনা ঘটে। পলাতক জিল্লুর রহমান ধুনট উপজেলার চান্দিয়ার গ্রামের বাসিন্দা। ধুনট উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সর আবাসিক চিকিৎসক ডা. ইকবাল হাসান সনি এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। তিনি জানান, বেলা ১১টার দিকে জিল্লুর রহমান নামে এক ব্যক্তি তার সন্তান লিখনকে নিয়ে জরুরি বিভাগে আসেন। জিল্লুর চিকিৎসককে জানান, লিখন ঘরের আড়ার সঙ্গে রশি ঝুলিয়ে আত্মহত্যা করেছে। সে জীবিত না মৃত তা নিশ্চিত হতে তিনি ছেলেকে এখানে নিয়ে এসেছেন। এ সময় জিল্লুর রহমানের কথায় সন্দেহ হলে বিষয়টি পুলিশকে জানানো হয়। কিন্তু পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে তিনি কৌশলে ছেলেকে ফেলে সটকে পড়েন। ধুনট থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) পঞ্চনন্দ সরকার বাংলানিউজকে ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন। তিনি জানান, হাসপাতালে গিয়ে জিল্লুর রহমানকে পাওয়া যায়নি। পরে চান্দিয়ার গ্রামে গিয়ে জানা যায়, ৩ ছেলে ও বৃদ্ধা মা তারাবানুকে নিয়ে জিল্লুর রহমানের অভাব-অনটনের সংসার। ৩ বছর আগে স্ত্রী পরকীয়ার টানে অন্য এক যুবকের সঙ্গে চলে গেছেন। ৩ ছেলের মধ্যে লিখন মেঝো। সে পারধুনট দারুল উলুম কওমী মাদ্রাসার হাফেজ শাখার শিক্ষার্থী। ঈদের ছুটিতে ৩ দিন আগে সে বাড়িতে এসেছে। বৃহস্পতিবার সকালে নিজ ঘরে তার ঝুলন্ত মৃতদেহ দেখে স্বজনরা বাবা জিল্লুর রহমানকে খবর দেন। পরে তিনি এসে লিখনকে হাসপাতালে নিয়ে আসেন। এদিকে, লিখনের মৃত্যু রহস্যজনক হওয়ায় ময়নাতদন্তের জন্য মৃতদেহ বগুড়া শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।


Spread the love