বগুড়ার ধুনটে শৈলমারি এতিমখানার ৩ শিশু শিক্ষার্থীকে নির্যাতন

58
Spread the love

image_2094_264939ধুনট (বগুড়া) প্রতিনিধি : বগুড়ার ধুনট উপজেলার এলাঙ্গী ইউনিয়নের শৈলমারী এতিম খানায় তিন শিশু শিক্ষার্থীকে নির্যাতন করা হয়েছে। গত শুক্রবার পুকুরের পানিতে নামার অভিযোগে তাদের বাঁশের কঞ্চি দিয়ে পেটানো হয়। আহত শিশুরা ধুনট স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসা নিয়েছে। এ ঘটনায় থানায় অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে। আহতরা হলো_ ধুনট উপজেলা সদরের বেলকুচি গ্রামের আবদুর রশিদের ছেলে রাকিব হোসেন (৮), নলডাঙ্গা গ্রামের আবুল হোসেনের ছেলে সাবি্বর হোসেন (৭) এবং হাতিবন্ধা উপজেলার মমিনুল ইসলামের ছেলে সজিব (৮)। অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, শুক্রবার জুমা’র নামাজের পূর্বে ছুটি থাকায় শিশু শিক্ষার্থী রাকিব হোসেন, সাবি্বর হোসেন ও সজিব এতিমখানার পুকুরের পানিতে নেমে খেলা করছিল। এ সময় মাদ্রাসার হাফেজ শাখার শিক্ষার্থী আবদুল মোত্তালিব বাঁশের কঞ্চি দিয়ে ওই তিন শিক্ষার্থীকে পিটিয়েছে। এতে ওই তিন শিক্ষার্থীর পা ও পিঠে জখম হয়। পরে তাদের ধুনট স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে প্রাথমিক চিকিৎসা দেয়া হয়েছে। আহত রাকিব হোসেন জানায়, পুকুরে হাঁটু পরিমাণ পানি ছিল। আমাদের ছুটির সময় হওয়ায় গোসলের আগে পুকুরের পানিতে মাছ ধরছিলাম। এসময় ছোট হুজুর (আবদুল মোত্তালিব) আমাদের কঞ্চি দিয়ে পিটিয়েছে। আবদুল মোত্তালিব ওই এতিম খানার হাফেজ শাখার শিক্ষার্থী। বড় হুজুর কোথাও গেলে তাকে পাঠদানের দায়িত্বে রেখে যান।
এতিম খানার প্রধান হুজুর আবদুল হালিম ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, আমি জুমার নামাজের জন্য বাহিরে থাকায় আবদুল মোত্তালিবকে অন্য শিক্ষার্থীদের দেখে রাখার দায়িত্ব দিয়েছিলাম। কিন্তু কাউকে নির্যাতন করতে বলিনি। ধুনট থানার অফিসার ইন চার্জ মিজানুর রহমান বলেন, শিশুদের পেটানোর ঘটনায় থানায় লিখিত অভিযোগটি তদন্ত করে দেখা হচ্ছে। বিষয়টি স্থানীয়ভাবে মীমাংসা না হলে আইনি ব্যবস্থা নেয়া হবে।


Spread the love