বনপা’র জরুরী সভা : অধ্যাপক আকতার চৌধুরী ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক

122
Spread the love

mail.google.comপ্রেস বিজ্ঞপ্তি :
বাংলাদেশ অনলাইন নিউজ পোর্টাল এ্যাসোসিয়েশন (বনপা)’র বিরুদ্ধে পরিকল্পিত ভাবে গভীর ষড়যন্ত্র করায় সংগঠনের নব-নির্বাচিত সাধারণ সম্পাদক সুভাষ সাহাকে বনপা’র গঠনতন্ত্রের ১৩ ধারা মোতাবেক বনপা থেকে সাময়িক ভাবে বহিষ্কার করা হয়েছে। সেই সাথে সুভাষ সাহার বিরুদ্ধে বনপা’র সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক ( খুলনা) ওয়ালিউল্লাহ খান কর্তৃক দাখিলকৃত লিখিত অভিযোগ তদন্ত করার জন্য বনপা’র গঠনতন্ত্রের ১৩ নং ধারার (ক) অনুচ্ছেদ অনুযায়ী সিনিয়র সহ-সভাপতি রাজু আহমেদ দিপুকে আহ্বায়ক ও মো.বেলায়েত হোসেন বেলাল ( সাংগঠনিক সম্পাদক) কে সদস্য সচিব করে ৪ সদস্য বিশিষ্ট তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে । কমিটির অন্যান্য সদস্য হলেন, ইঞ্জি. রোকমুনুর জামান রনি ( সি. যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক ) ও এ,এইচ,এম, তারেক চৌধুরী ( তথ্য ও প্রযুক্তি বিষয়ক সম্পাদক) ।
কমিটিকে ১০ কর্ম দিবসের মধ্যে অভিযোগ তদন্ত করে বনপা’র সভাপতির কাছে প্রতিবেদন দাখিল করার জন্য নির্দেশ দেয়া হয়েছে। বনপা’র কাজ কর্ম স্বাভাবিক ভাবে পরিচালনা করার জন্য সহ-সভাপতি অধ্যাপক আকতার চৌধুরীকে বনপা’র ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক হিসেবে দায়িত্ব প্রধান করা হয়েছে।
বনপা’র বিরুদ্ধে সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক গভীর ষড়যন্ত্র করছে এমন লিখিত অভিযোগ ২৫ আগষ্ট সন্ধ্যায় পাওয়ার পর রাতেই বনপা’র সভাপতি শামসুল আলম স্বপন তাঁর গঠনতান্ত্রিক ক্ষমতা বলে ২৬ আগষ্ট বিকেল ৪টায় বনপার জরুরী সভা আহ্বান করেন। বনপা’র অস্থায়ী কার্যালয় হাতির পুলের নাহার প্লাজায় জরুরী সভা বনপা’র সভাপতি শামসুল আলম স্বপনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত হয়।
সভায় উপস্থিত থেকে বক্তব্য রাখেন বনপা’র সিনিয়র যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক মো.রোকমুনুর জামান রনি, সাংগঠনিক সম্পাদক মো. বেলায়েত হোসেন বেলাল, মহিলা বিষয়ক সম্পাদক জোহরা পারভীর জয়া, নির্বাহী সদস্য মো. ওবায়েদ উল্লাহ ভূলন, প্রচার সম্পাদক মো. আনোয়ার হোসেন, নির্বাহী সদস্য আবু বকর সিদ্দিক, তৈয়ব আলী সিকদার, সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক ওয়ালী উল্লাহ খান, তথ্য ও প্রযুক্তি বিষয়ক সম্পাদক এ,এইচ,এম, তারেক চৌধুরী, নির্বাহী সদস্য
প্রদীপ বড়ুয়া (জয়), নির্বাহী সদস্য মো: জয়নাল আবেদীন।
অনলাইনে বক্তব্য রাখেন, গুলশান থেকে বনপা’র সি. সহ-সভাপতি রাজু আহমেদ দিপু, কক্সবাজার থেকে সহ-সভাপতি অধ্যাপক আকতার চৌধুরী, কাওরান বাজার থেকে সহ-সভাপতি মিজানুর রহমান হেলাল, উত্তরা থেকে সহ-সভাপতি তারেকুজ্জামান খান, লন্ডন থেকে সহ-সভাপতি কবি মুহিত চৌধুরী,রাজশাহী থেকে সহ-সভাপতি অধ্যাপক জাকির সেলিম, রাঙ্গামাটি থেকে সহ-সভাপতি নির্মল বড়ুয়া মিলন, সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক জুঁই চাকমা, রাজশাহী থেকে সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক সেলিম ভান্ডারী, পাবনা থেকে সমাজ কল্যাণ সম্পাদক সরকার রুহুল আমীন, সিলেট থেকে সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক সাইফুর রহমান, কাকরাইল থেকে যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক এ্যাড. মুজাহিদুল ইসলাম, ফরিদপুর থেকে প্রকাশনা সম্পাদক ফয়েজ আহমেদ, কক্সবাজার থেকে নির্বাহী সদস্য গোলাম সারওয়ার, উখিয়া থেকে নির্বাহী সদস্য ওবায়দুল হক আবু চৌধুরী, খুলনা থেকে নির্বাহী সদস্য কামরুজ্জামান,. সিলেট থেকে নির্বাহী সদস্য এস,এম হৃদয়, ভোলা থেকে নির্বাহী সদস্য খলিল উদ্দিন ফরিদ,কক্সবাজার থেকে সহ-প্রচার সম্পাদক ইসতিয়াক আহমেদ জয়, উত্তরা থেকে শিক্ষা সম্পাদক এস,এম,এ মনসুর মাসুদ, লন্ডন থেকে আর্ন্তজাতিক বিষয়ক সম্পাদক এস,এম ইকরাম উদ্দিন সিহাব, সিলেট থেকে নির্বাহী সদস্য এম,কে মোমিন, দিনাজপুর থেকে নির্বাহী সদস্য মাহমুদুল হক মানিক, নির্বাহী সদস্য জসিম উদ্দিন নির্বাহী সদস্য খাইরুল আলম সুমন, নির্বাহী সদস্য নুরুল আলম লিটন, লক্ষীপুর থেকে নির্বাহী সদস্য সদস্য সানা উল্লাহ সানু, নির্বাহী সদস্য বাবলু তালুকদার, নির্বাহী সদস্য বিপ্লব চাকমা, নির্বাহী সদস্য জহুরুল ইসলাম, নির্বাহী সদস্য আবুল কালাম আজাদ, নির্বাহী সদস্য জয়নাল আবেদীন, নির্বাহী সদস্য হেলাল উদ্দিন প্রমুখ ।
এর আগে দুপুরে সভাপতির মোবাইলে সভার সাফল্য কামনা ও সংহতি প্রকাশ করে বক্তব্য রাখে বি.বাড়িয়া থেকে নির্বাহী সদস্য গোরাঙ্গ দেব নাথ অপু ।
বক্তরা সভায় আলোচনায় অংশ নিয়ে বলেন, বাংলাদেশ অনলাইন নিউজ পোর্টাল এ্যাসোসিয়েশন (বনপা)’র ২১ আগষ্ট নির্বাচন ছিল ঐতিহাসিক ও সৌহার্দ পূর্ণ। মাত্র দু’টি দিনের ব্যবধানে নব-নির্বাচিত সাধারণ সম্পাদক সুভাষ সাহা সংগঠন নিয়ে এমন ষড়যন্ত্রে মেতে উঠবেন তা কারো কাম্য ছিল না। তিনি বনপাকে তার ব্যক্তিগত সম্পদ বানানোর অপচেষ্টায় লিপ্ত । বক্তারা আরো বলেন, সংগঠনের কাউকে না জানিয়ে হঠাৎ করে ২৪ আগষ্ট তার ব্যক্তিগত অফিসকে বনপা’র অফিস ঘোষণা দিয়ে সভা আহ্বান করেন। ওই সভায় সংগঠনের জনপ্রিয় সহ-সভাপতি অধ্যাপক আকতার চৌধুরী উপস্থিত না থাকলেও সুভাষ সাহা তার পোর্টাল নিউজ বিশেরবাঁশী ডটকমে ২১ আগষ্টের ছবি ইম্পোজ করে সংগঠন বিরোধী বক্তব্য দিয়ে নিউজ আপলোড করেন। যা বনপা’র গঠনতন্ত্রের ১৩ নং ধারার সম্পূর্ণ পরিপন্থ এবং সুষ্পষ্ট লংঘন । একজন দায়িত্বশীল ব্যক্তি ভুয়া সংবাদ ও ছবি প্রকাশ করে সংগঠন বিরোধী কাজই করেননি তিনি জঘন্য অপরাধ করেছেন। বনপা ও এর সদস্যদের অপমাানিত করা হয়েছে। বক্তাতারা বলেন, ২১ আগষ্ট নির্বাচন অনুষ্ঠিত হলেও সুভাষ সাহা ১৬,১৭ ও ১৮ আগষ্ট সাংবাদিক প্রবীর সিকদারের মুক্তি আন্দোলনে জাতীয় প্রেসক্লাবে অংশ নিয়ে নিজেকে বনপা’র সাধারণ সম্পাদক পরিচয় দিয়ে নিজ পোর্টালে সংবাদ প্রকাশ করে সংগঠন বিরোধী কাজ করেছেন। এ ছাড়া তিনি বনপা’র একাধিক কর্মকর্তার সাথে র্ব্যক্তিগত কর্মচারির মত আচরণ করেছেন যা অনভিপ্রেত। মিটিং এ আসার জন্য ই-মেইলে ও এসএমএস এর মাধ্যমে চিঠি দেয়া হলেও তিনি সভায় উপস্থিত না হয়ে সকলকে অপমানিত করেছে । এরপরও তিনি ক্ষমা না চেয়ে চ্যালেঞ্জ করে চরম ঐদ্ধত্য দেখিয়েছেন। তিনি বনপাতে থাকার সকল নৈতিকতা হারিয়েছেন।
বক্তরা আরো বলেন, বনপা’র প্রতি মহান আল্লাহর রহমত আছে বলেই শুরুতে সাধারণ সম্পদাকের ষড়যন্ত্র ধরা পড়ে গেছে । তা না হলে তিনি এই সংগঠনের মারাত্মক ক্ষতি করে বসতেন। তার সাধারণ সম্পাদক পদ শুধু নয়, বনপা’র সাধারণ সদস্য পদও বাতিল করতে হবে।
বক্তরা বলেন বনপা ভাঙ্গার ক্ষমতা কারো নেই। বরং এই ন্যাক্কার জনক ঘটনায় বনপা আরো শক্তিশালী হলো।
বক্তরা মিটিং-এর সকল এজেন্ডা আলোচনা শেষে অনুমোদন করেন এবং সকল বিষয় দ্রুত বাস্তাবায়ন এবং সুভাষ সাহার সংগঠন বিরোধী কর্মকান্ডের ব্যাপারে সিদ্ধান্ত দেয়ার জন্য সভাপতিকে অনুরোধ জানান।
সভাপতি শামসুল আলম স্বপন তার সমাপণী বক্তব্যে বলেন ২৫ আগষ্ট যা ঘটে গেছে তা অত্যন্ত দু:খ জনক। আমরা এমনটি আশা করেনি। সাধারণ সম্পাদক আমাদের সকলের সিনিয়র । তিনি সকলের অভিভাবক হিসেবে কাজ করবেন এটায় আমাদের আশা ছিল। কিন্ত কি কারণে তিনি এমনটি করলেন তা বোধগম্য নয়। তিনি বলেন আপনাদের দেয়া দায়িত্ব আমি পালন করবো তবে সেটা করতে হবে বনপা’র গঠনতন্ত্র মোতাবেক।
বনপা’র সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক ওয়ালী উল্লাহ খান ৮টি সুনিদৃষ্ট অভিযোগ এনে সুভাষ সাহার বিরুদ্ধে দরখাস্ত করেছেন। এব্যাপারে বনপা’র গঠনতন্ত্রের ১৩ নং ধারার (ক) অনুচ্ছেদ অনুযায়ী তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে । তদন্ত কমিটি প্রতিবেদন দাখিল করলে আরেকটি সভার মাধ্যমে বিষয়টি নিষ্পত্তি করা হবে। তিনি দোষী হলে গঠনতন্ত্র মোতাবেক ব্যবস্থা । দোষী না হলে তাকে স্ব-সম্মানে সংগঠনে ফিরিয়ে আনা হবে।
সভার সিদ্ধান্ত :-
১. অভিযোগের প্রেক্ষিতে সুষ্ঠু তদন্তের স্বার্থে সুভাষ সাহা কে সাময়িক বহিষ্কার করা হলো।
২. সহ-সভাপতি অধ্যাপক আক্তার চৌধুরীকে ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব প্রদান করা হলো।
৩. বনপা’র সকল প্রেসরিলিজ বা এসএমএস এখন থেকে সভাপতির নামে প্রকাশ করা হবে।
৪. বনপা’র সিন্ধান্ত যারা মানবেন না তাদেরকে বনপা’র সদস্যপদ বাতিল করা হবে।
৫. বনপা’র ওয়েভ পোর্টাল বনপা.নেট থেকে সকল সংবাদ সদস্যদের স্ব-স্ব পোর্টালে বাধ্যতামুলক ভাবে প্রকাশ করতে হবে।
৬. বনপা’র স্থায়ী কার্যালয় ও বনপা রেষ্ট হাউজ ভাড়া নেয়ার সিদ্ধান্ত গৃহিত হলো।
৭. বনপা’র সদস্যদের প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা নেয়া হবে।
৮. ৩০ তারিখ উপ-নির্বাচনের দিন বনপা’র অস্থায়ী কার্যালয়ে সকলকে উপস্থিত থাকার আহ্বান জানানো হলো।
৯. আগামী ১৫ অক্টোবর বনপা’র ৪র্থ প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী পালন ও নব-নির্বাচিত সদস্যদের অভিষেক অনুষ্ঠিত হবে।
১০.এ উপলক্ষে আগামী ৪ সেপ্টেম্বর বিকেল ৪টায় বনপার মাসিক সভা অনুষ্ঠিত হবে। এ সভায় সকল আয়-ব্যয়ের হিসাব দাখিল করা হবে।
১১. সুভাষ সাহার সাথে বনপা’র কোন সদস্য যোগাযোগ করলে তাকেও বহিষ্কারের সিদ্ধান্ত গৃহিত হয়।


Spread the love