বনপা ও অনলাইন প্রেসক্লাব নিয়ে বিভ্রান্তি সৃষ্টিকারীদের বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়ান

85
Spread the love

P-B3প্রেসবিজ্ঞপ্তি : ১৭.০৯.২০১৫ : বাংলাদেশ অনলাইন নিউজ পোর্টাল এ্সােসিয়েশন (বনপা)’ ও জাতীয় অনলাইন প্রেসক্লাবের নিবেদিত প্রাণ সদস্যদের বিভ্রান্ত্র করার জন্য একটি চক্র অপতৎপরতা চালিয়ে যাচ্ছে । চক্রান্তকারীদের বিরুদ্ধে বনপা’র সকল সদস্যকে রুখে দাঁড়ানোর জন্য আহ্বান জানিয়েছেন বনপা’র প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি শামসুল আলম স্বপন ও সাধারণ সম্পাদক (ভারপ্রাপ্ত) অধ্যাপক আকতার চৌধুরী সহ সকল সদস্য।
বিবৃতিতে নেতৃবৃন্দ উল্লেখ করেন গত ২১ আগষ্ট নির্বাচনের মাধ্যমে বনপা’র জাতীয় কমিটি গঠিত হয়।কিন্তু দূর্ভাগ্যজনক হলেও সত্য গত ২৫ আগষ্ট সভাষ সাহা বনপাকে কুক্ষিগত ও ভাঙ্গার ষড়যন্ত্রে লিপ্ত হন। লিখিত ভাবে অভিযোগ পাওয়ার পর ২৬ আগষ্ট বনপা’র গঠনতন্ত্র মোতাবেক বনপা’র নির্বাহী কমিটির সভায় সুভাষ সাহাকে তার পদ থেকে সাময়িক বহিষ্কার করা হয় এবং তার বিরুদ্ধে উত্থাপিত অভিযোগ তদন্তে জন্য কমিটি গঠন করা হয়। এর পর থেকে তিনি তার নিউজ পোর্টালে বনপা’র সভাপতি ও কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে বিষোধাগার করতে থাকেন।
১ সেপ্টেম্বর তদন্ত কমিটি সুভাষ সাহার বিরুদ্ধে আনিত অভিযোগ তদন্তের জন্য তাকে নোটীশ দেন । কিন্তু তিনি উপস্থিত না হয়ে বনপা’র গঠনতন্ত্র লংঘন করেন । একই দিন তদন্ত কমিটির প্রতিবেদনের প্রেক্ষিতে বনপা’র নির্বাহী কমিটির জরুরী সভায় বনপা’র গঠনতন্ত্রের ১৩নং ধারার (গ) অনুচ্ছেদ অনুযায়ী সর্বসম্মতিতে বনপা’র সাধারণ সদস্য ও সাধারণ সম্পাদকের পদ থেকে সুভাষ সাহাকে স্থায়ী ভাবে বহিষ্কার করা হয়। ওই দিন থেকে সুভাষ সাহা  আর বনপা’র কেউ নন।
এরপর তিনি বনপাকে নিয়ে ষড়যন্ত্রে মেতে ওঠেন । তিনি বিভিন্ন সময় ছড়াতে থাকেন বিভ্রান্তি। দেশের প্রখ্যাত প্রযুক্তিবিদ মোস্তাফা জাব্বারকে নিয়ে ৩ সেপ্টেম্বর বিষেরবাশীতে সুভাষ সাহা  লিখেছেন “বনপাতে মোস্তাফা জাব্বার আর নেই ”। সুভাষ সাহা অনেক পরে বনপাতে এসেছিলেন সে কারণে তিনি বনপা’র গঠনতন্ত্র সম্পর্কে অবগত নন।
গঠনতন্ত্রের ২০ ধারায় উল্লেখ আছে বনপা’র কেন্দ্রীয় কমিটি’র মেয়াদ উত্তীর্ণ হলে নির্বাহী কমিটির সভায় নতুন কমিটি গঠনের জন্য পুরাতন কমিটি বিলুপ্ত ঘোষণা করতে হবে। এর মধ্য দিয়ে বনপা’র উপদেষ্টা কমিটিও বিলুপ্ত হয়ে যাবে। নতুন নির্বাচিত কমিটি নতুন করে বনপা’র উপদেষ্টা কমিটি গঠন করবে।
সে ক্ষেত্রে গত ৩ জুলাই -২০১৫ বনপা’র কেন্দ্রীয় কমিটির সভায় কেন্দ্রীয় কমিটি বিলুপ্তি’র সাথে সাথে জনাব মোস্তাফা জাব্বারের প্রধান উপদেষ্টার পদটিও বিলুপ্তি হয়ে যায়।
সুতরাং মোস্তাফা জাব্বার বনপাতে আর নেই এক কথা বলা অবান্তর। নতুন কমিটি কাকে বনপা’র প্রধান উপদেষ্টা ও কাকে কাকে উপদেষ্টা মনোনীত করবেন সেটা কমিটির ব্যাপার । সুভাষ সাহা এ কথাটি লিখে সম্মানীত ব্যক্তিকে অসম্মানীতই করেছেন।
আবার ১৭ সেপ্টেম্বর ফেসবুকে স্যাটাস দিয়েছেন সুভাষ সাহার নেতৃত্বে বনপা’র ৮ সদস্যের একটি শক্তিশালী টিম  বনপা’র প্রতিষ্ঠাতা প্রধান উপদেষ্টা (সাবেক) মোস্তাফা জাব্বারের সাথে দেখা করেছেন । মোস্তাফা জাব্বার  “বনপা’র সাথে নেই ” লিখে আবার তার সাখে দেখা করা, বনপা নিয়ে মত বিনিময় করা এ সব লজ্জাহীনতার পরিচয় নয় কি ? বনপা’র চট্রগাম বিভাগীয় যুগ্ম-সাধারন সম্পাদক এম,আলী হোসেনের পরিচয় দেয়া হয়েছে সহ-সভাপতি হিসেবে । আমরা জানতে চাই এম, আলী হোসেন কবে বনপা’র সহ-সভাপতি হলেন? মিথ্যাচারের একটি সীমা থাকে। প্রখ্যাত প্রযুক্তিবিদের নামে মিটিং ডাকলেও বনপা’র জাতীয় কমিটির ৭১ সদস্যের মধ্যে মাত্র উপস্থিত ছিলেন ২জন । মোট উপস্থিতির সংখ্যা ছিল ৮ জন। তার মধ্যে একজন ছিলেন মহানগর জামায়াতে ইসলামীর নেতা।
৭১ সদস্যের জাতীয় কমিটির মধ্যে ২ জন উপস্থিতি যদি শক্তিশালী টিম হয় তা হলে আমাদের বলার কিছু নেই। সুভাষ সাহাকে বলছি বনপার বহিষ্কৃত ব্যক্তি হয়ে আপনি যে নোংরামী শুরু করেছেন এর পরিনাম ভালো না ।  আপনােেক আবারো অনুরোধ জানাচিছ যেহেতু আপনি বনপা থেকে চির বহিষ্কৃত ব্যক্তি সেহেতু বনপা নিয়ে কোন আপনার কথা বলা উচিৎ নয়  । আপনি নিজেকে ভালো মানুষ দাবি (?) করে ভালো মানুষদের নিয়ে ভালো কিছু করার চিন্তা ভাবনা করছেন সেটায় করুন।
বনপা নিয়ে টানা হেচড়া করছেন কেন ? প্রখ্যাত প্রযুক্তিবিদকে বলুন না তিনি নতুন সংগঠন সৃষ্টি করে প্রমাণ করুক তিনি একজন ভালো সংগঠক এবং পোর্টাল মালিকদের বন্ধু। বনপা’র প্রধান উপদেষ্টা ও জাতীয় অনলাইন প্রেসক্লাবের আহ্বায়ক থাকাকালীন তিনি সংগঠনের কল্যাণে কি করেছেন তার ওই দুটি সংগঠনের সদস্যরা সব জানেন । আমাদের অনুরোধ সম্মানীয় ব্যক্তিকে সম্মান নিয়ে থাকতে দিন । তাকে নিয়ে টানা হেচড়া করে মোজা বানাবেন না। পরের ছিদ্রাান্বষণের আগে নিজেদের ফুটো বন্ধ করুন (মৌ,কাবেরী রেজা, শংকর সাহাদের কথা চোখ বন্ধ করে একটু ভাবুন)। মনে রাখবেন সর্বাঙ্গে দাদ নিয়ে দাদের মলম বিক্রি করলে সে মলম চলে না।
নেতৃবৃন্দ বনপা’র কেন্দ্রীয় কমিটি, বিভাগীয় কমিটি, আঞ্চলিক কমিটি ও জেলা কমিটির সকল সদস্যকে ঐক্যবদ্ধ থাকার আহ্বান জানিয়ে বলেন,বনপা ও জাতীয় অনলাইন প্রেসক্লাবের শত্রুদের চিহ্নিত করুন এবং তাদের দাঁত ভাঙ্গা জবাব দিন। কোন ক্রমেই ষড়ন্ত্রকারীদের চক্রান্তে বিভ্রান্ত হবে না । আপানাদের বিজয় হয়েছে এ বিজয় টিকিয়ে রাখতে হবে। সামনে আসছে শুভদিন।

ধন্যবাদসহ-
শামসুল আলম স্বপন
সভাপতি বনপা

সদস্য সচিব
জাতীয় অনলাইন প্রেসক্লাব
মোবা: ০১৭১৬৯৫৪৯১৯

অধ্যাপক আকতার চৌধুরী
ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক
বনপা
ও যুগ্ম আহ্বায়ক
জাতীয় অনলাইন প্রেসক্লাব।


Spread the love