বরগুনায় স্ত্রীর পরকীয়ায় পরিকল্পিত ভাবে স্বামী খুন, স্ত্রীসহ আটক ৩

271
Spread the love

mমো:খাইরুল ইসলাম আকাশ, বরগুনা প্রতিনিধি : বরগুনায় তালতলী উপজেলার কড়ইবাড়িয়া ইউনিয়নের আলীরবন্দর গ্রামের আবুল কাসেম নামে এক যুবক খুন হয়েছে। স্ত্রীর পরকীয়া প্রেমে বাধা দেয়ায় অপহরণ শেষে খুন করে তার লাশ খালে ফেলে দেয়া হয়েছে। তিন দিন পরে শুক্রবার বিকেলে স্থানীয়রা কাসেমের লাশ খালে ভাসতে দেখে এবং তালতলী থানায় খবর দিলে পুলিশ এসে লাশ উদ্ধার করেছে। তাকে হত্যার অভিযোগে তার স্ত্রী সোনিয়া আক্তার, রাসেল আকন ও মিরাজ ফরাজী কে পুলিশ আটক করেছে। নিহত আবুল কাসেম ঢাকার একটি বালীর জাহাজে সুকানীর চাকরি করতো। গত রবিবার ঈদ করার জন্য কাসেম বাড়ি এসেছিলো। কাসেম ও সোনিয়ার সাড়ে ৩ বছরের একটি ছেলে সন্তান রয়েছে। কাসেম বাড়ি না থাকার সুযোগে সোনিয়ার সাথে তালতলী উপজেলার পচাকোড়ালিয়া ইউনিয়নের জয়ালভাঙ্গা গ্রামের সোহরাব তালুকদারের ছেলে শামসু তালুকদার পরকীয়া প্রেমের সম্পর্ক গড়ে তোলে। শামসুর খালু, আর কাসেমের একই বাড়ি হওয়ায় শামসুর অবাধ চলাচল কেউ ঠেকাতে পারেনি। তবে সম্প্রতি শামসু আর সোনিয়ার অনৈতিক প্রেমের সম্পর্ক কথা এলাকায় ছড়িয়ে পরে। সোনিয়ার পরকিয়া প্রেম স্বামী কাসেম দেখে ফেলায় সোনিয়া আর তার প্রেমিক শামসু পরিকল্পনা করে কাসেমকে দুনিয়া থেকে সরিয়ে দেবার উদ্যোগ নেয়। শামসু তার বন্ধুদের সাথে নিয়ে বুধবার বিকেলে কাসেমকে অপহরণ করে। পরে তাকে হত্যা করে লাশ আলীরবন্দর এলাকার একটি খালে ফেলে দেয়। তালতলী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (তদন্ত) কমলেস হালদার জানিয়েছেন, তারা খবর পেয়েই খাল থেকে লাশ উদ্ধার করেছেন। তিনি আরো জানিয়েছেন, কাসেমকে হত্যার সাথে জড়িত থাকার সন্দেহে তার স্ত্রী সোনিয়া আক্তার, শামসুর ২ বন্ধু পচাকোড়ালিয়া ইউনিয়নের জয়ালভাঙ্গা গ্রামের মিরাজ ফরাজী ও রাসেলকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটক করা হয়েছে। জিজ্ঞাসাবাদে কাসেমের স্ত্রীর পরকীয়া সম্পর্ক ও কাসেমকে হত্যার কিছু তথ্য উদঘটিত হয়েছে। এ ঘটনায় কাসেমের বাবা নুরুল ইসলাম বাদী হয়ে তালতলী থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেছেন।


Spread the love