বাকৃবিতে প্রথম আলোর প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উদ্যাপন

60
Spread the love

5আবুল বাশার মিরাজ,বাকৃবি প্রতিনিধি : বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের নানা আয়োজনে প্রথম আলোর ১৭তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর আয়োজন করা হয়েছে। আনন্দ শোভাযাত্রা, ভালোবাসার রঙ ছাপ ও মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান ও মিষ্টি বিতরনের মধ্যদিয়ে অনুষ্ঠান শেষ হয়। আজ শুক্রবার বিকেল ৩টায় বিশ্ববিদ্যালয়ের মুক্তমঞ্চ থেকে একটি আনন্দ শোভাযাত্রা বের করা হয়। শোভাযাত্রাটি বিভিন্ন অনুষদীয় ভবন, শিক্ষার্থীদের হল ও বিশ্ববিদ্যালয়ের কামাল-রঞ্জিত মার্কেট প্রদক্ষিণ করে শিল্পাচার্য জয়নুল আবেদিন মিলনায়তনে এসে শেষ হয়। মিলনায়তনের ‘মুক্তমঞ্চ’-এ প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর মূল অনুষ্ঠান শুরু হয়। প্রথম আলোর বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় বন্ধুসভার সভাপতি শফিকুর রহমানের সভাপতিত্বে শুভেচ্ছা বক্তব্য দেন প্রথম আলোর বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিনিধি মো. শাহীদুজ্জামান। পাঠকদের মধ্যে পশুপুষ্টি বিভাগের শিক্ষক মো. কামরুজ্জামান, শিক্ষার্থী কিশোর কুমার ও শিউলি আক্তার বক্তব্য দেন।  এছাড়া বিশ্ববিদ্যালয়ের গ্র্যাজুয়েট ট্রেনিং ইনস্টিটিউটের অধ্যাপক মাছুমা হাবিব, সহযোগী ছাত্রবিষয়ক উপদেষ্টা অধ্যাপক মো. আলমগীর হোসেন এবং উপাচার্য অধ্যাপক মো. আলী আকবর বক্তব্য দেন। উপাচার্য বক্তব্যে বলেন, প্রথম আলোর জন্মলগ্ন থেকেই আমি প্রথম আলোর পাঠক। উপাচার্য হওয়ার পর আমাকে কয়েকটি পত্রিকা পড়তে হয়। কিন্তু এর আগে আমি শুধুই প্রথম আলো পড়তাম। অনেক বাধা-বিপত্তির পরেও প্রথম আলো বস্তুনিষ্ঠ সাংবাদিকতা থেকে বিচ্যুত হয়নি। প্রথম আলোর এ নিরপেক্ষতা যুগ যুগ ধরে বজায় থাকবে বলে তিনি আশা ব্যক্ত করেন। পরে উপাচার্য প্রথম আলোর বিশ্ববিদ্যালয় বন্ধুসভার আয়োজনে সাদা কাপড়ে তৈরি ‘ভালোবাসার ছাপে’ রঙ দিয়ে হাতের ছাপ দেন। উপস্থিত অন্যান্যরাও রঙ দিয়ে ছাপ দেন। পরে এক মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। এতে রবীন্দ্র সঙ্গীত পরিবেশনা করেন সফিকুর, শ্যামল, প্রজ্ঞা ও কিশোর। মেহেদী হাসান নজরুল সঙ্গীত ও ওয়াহেদুজ্জামান স্বপ্নীল একটি দেশাত্ববোধক গান পরিবেশন করেন। প্রথম আলোর বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিনিধি শাহীদুজ্জামান সাগর এর আধুনিক গান পরিবেশন মধ্য দিয়ে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের সমাপ্তি ঘটে। গানটি দর্শকদের মন ছুয়েঁ যায়। পরে উপস্থিত অতিথি, পাঠক, শুভাকাক্সক্ষীদের মাঝে মিষ্টি বিতরণ করা হয়।


Spread the love