বিসিক এর উদ্যোগে পাবনায় আয়োডিনযুক্ত লবণ ব্যবহারের উপর এক কর্মশালা অনুষ্ঠিত

71
Spread the love

DSC00323 copyএস এম আলম, পাবনা : বাংলাদেশ কুঠির শিল্প সংস্থার উদ্যোগে আজ পাবনাতে “ সর্বত্র আয়োডিনযুক্ত লবণ ব্যবহার নিশ্চিতকরণ”  শীর্ষক এক সেমিনার পিসিসি মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত হয়। জেলা প্রশাসক কাজী আশরাফ উদ্দীনের সভাপতিত্বে সেমিনারের উদ্বোধন করেন গণ প্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের অতিরিক্ত সচিব ও বিসিক পরিচালক নূরুল ইসলাম। অন্যান্যদের মধ্যে বক্তব্য দেন আয়োডাইজড প্রকল্পের পরিচালক আবু জামিল, ইউনিসেফের কান্ট্রি ডিরেক্টর প্রকৌশলী আশেক রহমান, পাবনা মেডিকেল কলেজের অধ্যক্ষ ডা. রিয়াজুল হক। এ সময় উপস্থিত ছিলেন সিভিল সার্জন (ভারপ্রাপ্ত) ড. এস এম  মোস্তাফিজুর রহমান,বিসিক সম্প্রসারন কর্মকর্তা সাইফুল ইসলাম, জেলা শিক্ষা কর্মকর্তা কেরামত আলী, পিডি পাবনা  বিসিক এন কে সাহা,  পাবনা প্রেস ক্লাবের সভাপতি রবিউল ইসলাম রবি, সাংবাদিক আব্দুল মতীন খান, প্রেস ক্লাবের সাধারণ সম্পাদক আহমেদ উল হক রানা, মাছ রাঙার ব্যুরো প্রতিনিধি উৎপল মির্জা,অনলাইন পত্রিকা নতুন চোখের প্রকাশক ও সম্পাদক এস এম আলম, সাংবাদিক সৈকত আফরোজ, সাংবাদিক মোস্তাফিজুর রহমান প্রমুখ। কর্মশালায় পাবনা , নাটোর ও সিরাজগঞ্জ জেলার শিক্ষা কর্মকর্তা, বিসিক কর্মকর্তা, লবণ উৎপাদন প্রতিষ্ঠানের প্রতিনিধি, ব্যবসায়ী, সাংবাদিক প্রমুখ দেড় শতাধিক ব্যক্তি অংশগ্রহণ করেন। প্রধান অতিথি নুরুল ইসলাম বলেন “পূর্বের তুলনায় মানুষের মধ্যে আয়োডিন সম্পর্কে সচেতনতা বাড়লেও এখন পর্যন্ত আয়োডিনের ক্ষেত্রে কাঙ্খিত লক্ষ্যমাত্রা অর্জন করতে সক্ষম হইনি”। তিনি দরিদ্র জনগোষ্ঠীর মধ্যে আয়োডিনযুক্ত লবণ প্রসারে ব্যাপক সচেতনতা সৃষ্টির জন্য সমাজের শিক্ষিত ব্যক্তিবর্গ, ব্যবসায়ীসহ সংশ্লিষ্ট সকলের ভূমিকার উপর গুরুত্ব আরোপ করেন। কর্মশালায় আয়োডিন বিষয়ক মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন প্রফেসর ড. এম. বোরহান উদ্দিন, ফুড টেকনোলজি ও গ্রামীণ শিল্প  বিভাগ, বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়, ময়মনসিংহ। তিনি তাঁর উপস্থাপিত প্রবন্ধে বলেন, আয়োডিনের অভাবে বুদ্ধিহীনতা, বিকলাঙ্গতাসহ মানবদেহে ১০৪টি সমস্যা তৈরি হতে পারে। তিনি দৈহিক গঠন ও মেধা বিকাশে মানবদেহে আয়োডিনের প্রয়োজনীয়তা তুলে ধরেন। মূল প্রবন্ধের উপর বক্তব্য রাখেন সিআইডিডি প্রকল্প পরিচালক মো: আবু জামিল এবং এম আই বাংলাদেশ এর ন্যাশনাল প্রোগ্রাম অফিসার ইঞ্জিনিয়ার আশেক মাহফুজ। কর্মশালাটি পরিচালনায় সহায়তা করেন ক্যাপাসিটি বিল্ডিং সার্ভিস গ্রুপ  (সিবিএসজি)।


Spread the love