ব্যালট বাক্স ছিনতাইকালে বিজিবি-পুলিশের গুলিতে ৬ জন নিহত ঝালকাঠি, কক্সবাজার, নেত্রকোনা ও সিরাজগঞ্জে নিহত আরও ৫

63
Spread the love

gbtgনিজস্ব প্রতিবেদক : ইউপি নির্বাচনে ভোট গননার পর পুলিশ, বিজিবি ও প্রতিপক্ষের গুলিতে দেশের পাঁচ জেলায় নারীসহ ১১ জন নিহত হয়েছে। এরমধ্যে পিরোজপুরে ছয়জন, কক্সবাজারে দু’জন, ঝালকাঠিতে, নেত্রকোনা ও সিরাজগঞ্জে একজন করে রয়েছেন। পিরোজপুরের মঠবাড়িয়ায় বিজিবির গুলিতে ছয়জন, ঝালকাঠিতে মেম্বর প্রার্থীর ভাই, নেত্রকোনায় পুলিশের গুলিতে আ’লীগের চেয়ারম্যান প্রার্থীর ভাই, কক্সবাজারের টেকনাফে পুলিশ-বিজিবির সঙ্গে আ’লীগের দু’গ্র“পের গোলাগুলিতে ২ জন নিহত হয়েছে। বিচ্ছিন্নভাবে গুলিবিদ্ধ হয়েছে ৫০। পিরোজপুর : ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনের ফলাফলকে কেন্দ্র করে পিরোজপুরের মঠবাড়িয়ায় বর্ডার গার্ড বাংলাদেশের (বিজিবি)-এর গুলিতে ছয়জন নিহত হয়েছে। এ ঘটনায় আহত হয়েছে আরো অনেকে। গতকাল মঙ্গলবার রাত সাড়ে ৯টার দিকে ধানীসাফা ইউনিয়নের সাফা ডিগ্রি কলেজ কেন্দ্রে এ ঘটনা ঘটে। এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন মঠবাড়িয়া পৌর মেয়র ফেরদৌস আহমেদ ও পিরোজপুর জেলা পুলিশ সুপার ওয়ালিদ হোসেন । জানা যায়, উপজেলার ধানীসাফা ইউনিয়নের সাফা ডিগ্রি কলেজ কেন্দ্রে আগে থেকেই নৌকার সিল মারা বেশকিছু ব্যালট বাতিল বলে ঘোষণা করেন দায়িত্বরত ম্যাজিস্ট্রেট। কিন্তু ব্যালট বাতিলে বাধা দেয় নৌকার সমর্থকরা। এ সময় ম্যাজিস্ট্রেট কাজী জিয়াউলকে অবরুদ্ধ করে রাখা হয় বলে জানা যায়। খবর পেয়ে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী এসে তাকে উদ্ধার করে। এ সময় বিজিবির গুলিতে পাঁচজন নিহত হন। আহত হন আরো অনেকেই। ম্যাজিস্ট্রেটের নির্দেশেই গুলি চালানো হয়েছে বলে জানা গেছে। নিহতদের মধ্যে তিনজনের পরিচয় পাওয়া গেছে। তারা হলেন ফজলু মাতুব্বরের ছেলে সোহেল (২৫), আবদুল মজিদের ছেলে শাহাদাত (৩০) ও সাইদুল মৃধার ছেলে কামরুল মৃধা (২৫)। এরা সবাই নৌকার সমর্থক বলে জানা গেছে। ঝালকাঠি : জেলার নবগ্রাম ইউনিয়নের কালিআন্দার সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ভোটকেন্দ্রে দুই মেম্বর সমর্থকের মধ্যে সংঘর্ষে প্রার্থীর ভাই আবুল কাশেম শিকদার কাঞ্চন নিহত হয়েছেন। গতকাল মঙ্গলবার বিকেলে নবগ্রাম ইউনিয়নের একটি ভোটকেন্দ্রে এ ঘটনা ঘটে। তবে রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত বিস্তারিত জানা সম্ভব হয়নি। কক্সবাজার : জেলার টেকনাফের সাবরাং ইউনিয়নের শাহপরীর দ্বীপে পুলিশ-বিজিবির সঙ্গে আ’লীগের দু’গ্র“পের গোলাগুলিতে দুইজন নিহত হয়েছে। এ সময় আরো ৩০ জন গুলিবিদ্ধ হয়েছে। গতকাল মঙ্গলবার রাত সাড়ে ৮টার দিকে মুন্দাদেইল ও শাহপরীর দ্বীপ এলাকায় এ সংঘর্ষ হয়। জানা যায়, সন্ধ্যা পর ভোট গণনা শেষে ব্যালট বাক্স কেন্দ্রে নিয়ে আসার সময় শাহপরীর দ্বীপ এলাকায় পৌঁছলে আ’লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী ও তার সমর্থকেরা তা ছিনিয়ে নেয়ার চেষ্টা করে। এ সময় তারা স্থানীয় আওয়ামী লীগের প্রার্থীকে অবরুদ্ধ করে রাখেন। পরে পুলিশ ও বিজিবি পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে গেলে উভয়পক্ষের মধ্যে গোলাগুলি হয়। এতে এই হতাহতের ঘটনা ঘটে। আ’লীগ দলীয় প্রার্থী সোনা আলী ও বিদ্রোহী প্রার্থী নুর হোসেনের সমর্থকদের সাথে বিজিবি ও পুলিশের ব্যাপক সংঘর্ষ চলছে। অন্তত ৩০ জন গুলিবিদ্ধ হয়েছে বলে জানা গেছে। আহতদের অনেকের অবস্থা আশঙ্কাজনক। প্রাথমিক তথ্যে ২ জন নিহত হয়েছে বলে খবর পাওয়া গেছে। নেত্রকোনা : জেলার খালিয়াজুরী উপজেলার খালিয়াজুরী ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনের ভোট গণনার পরে ভোটের ফলাফল ঘোষণা নিয়ে পুলিশের সঙ্গে গোলাগুলিতে খালিয়াজুরীর আদাউড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে আওয়ামী লীগ প্রার্থী গোলাম আবু ইসহাকের ছোট ভাই কাওসার মিয়া (২৫) গুলিবিদ্ধ হয়ে মারা যান। গতকাল মঙ্গলবার রাত ৭টার দিকে এ ঘটনা ঘটে। তার ভাই ছালাক মিয়া জানান, রাত ৭টার দিকে ভোটের ফলাফল ঘোষণা নিয়ে পুলিশের সঙ্গে তর্কবিতর্কের সময় তিনি গুলিবিদ্ধ হন এবং হাসপাতালে নিলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। স্থানীয়দের দাবি, পুলিশের গুলিতেই তিনি মারা গেছেন। নেত্রকোনার পুলিশ সুপার জয়দেব চৌধুরী জানান, কাওসার ও তার লোকজন আদাউড়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্র থেকে ভোট বাক্স ছিনতাইয়ের সময় পুলিশের সঙ্গে তাদের ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া হয়। এক পর্যায়ে ব্যালট পেপার ভর্তি বাক্স রক্ষা করতে পুলিশ গুলি ছোড়ে। তখন তারাও পাল্টা গুলি ছোড়ে। গোলাগুলির সময় হয়তো তার মৃত্যু হতে পারে বলে তিনি জানান। তবে তদন্ত করে দেখা হচ্ছে বলে তিনি জানান। এছাড়া ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচনের ফলাফল ঘোষণা নিয়ে সংঘর্ষে সিরাজগঞ্জে একজনের নিহতের খবর পাওয়া গেছে। এছাড়া বিভিন্ন জেলায়ও সংঘর্ষ ও গোলাগুলির ঘটনা ঘটেছে। কুষ্টিয়া জেলার মিরপুর উপজেলার পোড়াদহ ইউনিয়নে ব্যালট বাক্স ছিনতাইকালে সংঘর্ষে ১০ জন গুলিবিদ্ধসহ ১১ জন আহত হয়েছে। গতকাল মঙ্গলবার পোড়াদহ ইউনিয়নে তেঘরিয়া গ্রামে দু’গ্র“পের সংঘর্ষে এ ঘটনা ঘটে। আহতদের কুষ্টিয়া মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।


Spread the love