ব্লগার অনন্ত হত্যার দায়ে গ্রেপ্তার দুই সহোদর ৭ দিনের রিমান্ডে

92
Spread the love

স্টাফ রিপোর্টার Sumi-sylhet-221: বিজ্ঞানমনস্ক লেখক ও ব্লগার অনন্ত বিজয় দাশ হত্যাকাণ্ডে জড়িত সন্দেহে সিলেটের কানাইঘাট থেকে গ্রেপ্তার দুই সহোদরকে ৭ দিনের রিমান্ডে নেওয়া হয়েছে। এরা হলো, কানাইঘাটের পূর্ব পালজুর গ্রামের হাফিজ মইনুদ্দিনের ছেলে মান্নান ইয়াহিয়া ওরফে মান্নাম রাহী ও তার ভাই মোহাইমিন নোমান ওরফে এএএম নোমান।
গতকাল শুক্রবার রাত নয়টায় সিআইডি’র অর্গানাইজড ক্রাইম বিভাগের বিশেষ পুলিশ সুপার মির্জা আবদুল্লাহ হেল বাকী সিলেট মহানগর পুলিশ কমিশনারের কার্যালয়ে প্রেসব্রিফিংয়ে এ তথ্য জানান। শুক্রবার ভোররাতে উপজেলার কানাইঘাট থেকে তাদের আটকের পর দুপুরে মহানগর হাকিম আদালত-১ এ হাজির করা হয়। এসময় মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা আবদুল মান্নান দু’জনকে ১৫ দিনের রিমান্ড আদেন করেন। মহানগর হাকিম আদালত-১ এর বিচারক শাহিদুল করিম এবিষয়ে শুনানি শেষে তাদের দু’জনের ৭ দিনের রিমান্ড আবেদন মঞ্জুর করেন। শুক্রবার ভোররাতে রাতে তাদেরকে গ্রেপ্তার করা হলেও সারাদিন বিষয়টি গোপন রাখে সিআইডি।
এদিকে একই ঘটনায় আরও ৫ জনকে শোন-অ্যারেস্ট দেখানো হয়েছে বলে রাত ৯টার দিকে পুলিশ কমিশনারের কার্যালয়ে প্রেসব্রিফিংয়ে মাধ্যমে জানানো হয়েছে।
প্রেসব্রিফিংয়ে মহানগর পুলিশের কমিশনার মো. কামরুল আহসান, অতিরিক্ত কমিশনার এসএম রুকন উদ্দিন, উপ-কশিমনার (সদরদপ্তর) মো. রেজাউল করিম, র‌্যাব -৯ এর সহকারি পরিচালক মাঈন উদ্দিন চৌধুরী, এসএমপির অতিরিক্ত উপ কমিশনার রহমতউল্লাহ উপস্থিত ছিলেন।
সূত্র জানায়, শুক্রবার ভোরে জেলার কানাইঘাট থেকে ওই দু’জনকে আটক করা হয়। ঢাকায় ব্লগার রাজিব হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় কয়েক মাস আগে সিলেটের মুন্সিপাড়া থেকে গ্রেপ্তার হওয়া জঙ্গি ফারাবির সূত্র ধরেই তাদের দু’জনকে আটক করা হয়েছে।
এর আগে গত ৭ জুন আলোচিত এ হত্যার ঘটনায় গ্রেপ্তার করা হয় স্থানীয় একটি পত্রিকার ফটো সাংবাদিক ইদ্রিছ আলীকে। রিমান্ড শেষে এখন জেলহাজতে রয়েছেন ইদ্রিছ। ইদ্রিছ আলীর বিষয়ে এক প্রশ্নের জবাবে প্রেসব্রিফিংয়ে সিআইডির বিশেষ সুপার মির্জা আবদুল্লাহ হেল বাকীর বলেন, ইদ্রিছ আলীকে রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়েছে। তার কাছ থেকে পাওয়া তথ্য উপাত্ত আমরা পর্যালোচনা করছি। তবে সে নির্দোষ হলে চার্জশিটে তাকে বাদ দেয়া হবে। আর জড়িত থাকার প্রমান থাকলে তাকে অভিযুক্ত করা হবে। অযথা ইদ্রিছ আলীকে হয়রাণি করা হবে না বলে তিনি সাংবাদিকদের আশ্বস্থ করেন।
প্রসঙ্গত, ১২ মে সিলেট নগরের সুবিদবাজারে নিজ বাসা থেকে বেরিয়ে কর্মস্থলে যাওয়ার পথে তার বাসার দুইশত গজ দুরে কুপিয়ে হত্যা করা হয় ব্লগার অনন্ত বিজয় দাশকে। হত্যাকাণ্ডের পরপরই অনন্ত’র বড়ভাই রত্মেশ্বর দাশ বাদী হয়ে অজ্ঞাতনামাদের বিরুদ্ধে শাহপরাণ থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন। মামলাটি বর্তমানে সিআইডির ক্রাইম অর্গানাজড টিম তদন্ত করছে। অনন্ত বিজয় সিলেট গণজাগরণ মঞ্চের সক্রিয় কর্মী ছিলেন।


Spread the love