বয়কট, বিশৃংখলা আর টান টান উত্তেজনায় শেষ হল ফ্রান্স বিএনপির প্রতিষ্টা বার্ষিকী অনুষ্টান

85
Spread the love

full_1653762227_1444635897বদরুল  ইসলাম ফ্রান্স থেকে : ফ্রান্স প্রতিনিধি: বিশৃঙ্খলা, উত্তেজনা আর কমিটির একাংশের অনুষ্টান বয়কটের মধ্য দিয়ে শেষ হল ফ্রান্স বিএনপির আয়োজনে দলের ৩৩তম প্রতিষ্টা বার্ষিকী ও ঈদ পুনর্মিলনী অনুষ্টাণ। অনুষ্টানে প্রধান অথিতি হিসাবে উপস্তিত ছিলেন কেন্দ্রীয় বিএনপির আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক মাহিদুর রহমান। এক বছর আগে ঘোষিত কমিটির এটাই ছিল প্রথম কোন বড় অনুষ্টান। কিন্ত বিগত এক বছরে সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের সমন্নয়হীনতা, দলের গঠনতন্ত্র বিরুধী কার্যক্রম সর্বোপরি দলের হাজার হাজার নেতাকর্মীকে কারাগারে রেখে সাংস্কৃতিক অনুষ্টান আয়োজনের বিরুধিতা করে বর্তমান কার্যকরী কমিটির প্রায় দুই তৃতীয়াংশ সদস্য আজকের সমাবেশ বর্জনের ডাক দেয়। ফলে রোববারের অনুষ্টানে ফ্রান্স বিএনপির ১৫১ সদস্য বিশিষ্ট কার্যকরী কমিটির মাত্র ২০থেকে ২৫ জন সদস্য উপস্তিত ছিলেন।
রোববার প্যারিসের পার্শ্ববর্তী ওভার ভিলার একটি হলে ফ্রান্স বিএনপির উদ্যোগে দলের প্রতিষ্টা বার্ষিকী ও ঈদ পুনর্মিলনী উপলক্ষে আলোচনা সভা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্টাণের আয়োজন করা হয়। ফ্রান্স বিএনপির সভাপতি সাইফুল ইসলামের সভাপতিত্বে ও সাংগঠনিক সম্পাদক জালাল খানের পরিচালনায় কোরআন তেলাওয়াতের মাধ্যমে অনুষ্টাণ শুরু হয় বিকাল ৬টায়। এ সময় প্রধান অথিতি বিএনপির আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক মাহিদুর রহমান মঞ্চে উপস্তিত হন। অনুষ্টান শুরুর কিছুক্ষণ পর ইকবাল হুসেনের নেতৃত্বে তৃণমূল বিএনপির প্রায় শতাধিক নেতা কর্মী হলে প্রবেশ করে। এ সময় সমাবেশ স্তলে কিছুটা উত্তেজনা দেখা দেয়। হট্টগোল ও বিশৃঙ্খলার মধ্যেই তারা প্রধান অথিতিকে ফুলের তোড়া দিয়ে অভিনন্দন জানান। পরে রাস্তায় এসে তারা এক পথ সভায় মিলিত হয়ে বর্তমান কমিটির প্রতি তাদের ক্ষোভ ঝাড়েন এবং কমিটি পুনর্গঠনের দাবি জানান। এদিকে তৃনমূলের প্রস্তানের পর আবারও অনুষ্টান শুরু হলে এক পর্যায়ে বক্তব্য দিতে মাইক্রো ফোনের সামনে আসেন ফ্রান্স বিএনপির সহ সভাপতি ও ফ্রান্স মহিলা দলের সভানেত্রী মমতাজ আলো। তার বক্তব্যে সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের মৃদু সমালোচনার পাশাপাশি ফ্রান্স বিএনপির অচলাবস্তা নিরসনে প্রধান অথিতির দৃষ্টি আকর্ষণ করলে আরেক দফা বিশৃঙ্খলার শুরু হয়। এ সময় কিছু উশৃংখল নেতা কর্মী মমতাজ আলোকে আক্রমণাত্মক ভাষায় বিশেদ্গার করতে থাকে। প্রতিবাদে মহিলা দল নেত্রী বক্তব্য অসমাপ্ত রেখে সভাস্তল ত্যাগ করেন। এর পর উপস্তিত নেতৃবৃন্দ তাদের বক্তব্য উপস্তাপন করেন। প্রধান অথিতি মাহিদুর রহমান ফ্রান্স বিএনপিকে ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করে দেশে গণতন্ত্র ফিরিয়ে আনার লড়াইয়ে শরিক হওয়ার আহ্বান জানান। আলোচনা সভা শেষে সাংস্কৃতিক অনুষ্টানের মাধ্যমে অনুষ্টান শেষ হয়। অন্যদিকে একই সময় প্যারিসের অন্য একটি হলে ফ্রান্স বিএনপির কার্যকরী কমিটির বড় অংশটি এক জরুরী সভায় মিলিত হয়। তারা বর্তমান সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের তীব্র সমালোচনা করেন। দলের মধ্যে অনৈক্য ও বিদ্ধেষ ছড়িয়ে দেয়ার জন্য তারা সভাপতি-সাধারন সম্পাদককে দায়ী করেন। তারা দলের এমন কঠিন সময়ে প্রতিষ্টা বার্ষিকীর নামে নাচ গানের অনুষ্টান আয়োজনের তীব্র সমালোচনা করেন। দেশে বিএনপি যখন এক কঠিন পরিস্তিতি মোকাবেলা করছে এমন সময় ফ্রান্স বিএনপির আভ্যন্তরীণ বিরুধে দলের সাধারণ নেতা কর্মীরা ক্ষুব্ধ প্রতিকৃয়া ব্যাক্ত করেছেন। বিশেষ করে কিছু দিন পর প্রধানমন্ত্রীর ফ্রান্স সফরকে সামনে রেখে যেখানে বিএনপির ঐক্য জরুরী ছিল, সেখানে নেতৃত্বের এমন অপরিণামদর্শী ভুমিকায় তারা হতাশা প্রকাশ করেন।


Spread the love