মনিরামপুরে আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে যুবলীগের দুই গ্রুপের মধ্যে থেমে থেমে ধাওয়া পাল্টা ধাওয়াসহ সংঘর্ষ :আহত ১০, অস্ত্রসহ আটক ২

83
Spread the love

যশোর প্রতিনিধি : আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে যশোরের মনিরামপুরে শুক্র-শনি ও রোববার তিনদিন যুবলীগের দুই গ্রুপের মধ্যে থেমে থেমে ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া, হামলা পাল্টা হামলাসহ সংঘর্ষ হয়।এতে উপজেলা যুবলীগের সহ সভাপতিসহ অন্তত: ১০ জন আহত হয়। এ সময় ভাংচুর করা হয় দুইটি মোটরসাইকেল। পুলিশ অস্ত্রসহ যুবলীগের ২ কর্মীকে আটক করে। এ ঘটনাকে কেন্দ্র করে এলাকায় চরম উত্তেজনা বিরাজ করছে। পৌরশহরে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।
জানাযায়, আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে শুক্রবার রাত আটটার দিকে পৌরশহরের দূর্গাপুর মোড়ে হামলা চালিয়ে যুবলীগ নেতা মিজানুরসহ তিনজনকে মারপিটে আহত করে যুবলীগের প্রতিপক্ষ গ্রুপের কর্মীরা। এসময় যুবলীগ কর্মী বিল্লাল হোসেনের মোটরসাইকেলটি ভাংচুর করা হয়।এ ঘটনার জের ধরে শনিবার দুপুরে দূর্গাপুর মোড়ে যুবলীগ ও ছাত্রলীগের একটি অংশ প্রতিপক্ষ গ্রুপের জাহাঙ্গীর হোসেনের ওপর হামলা চালিয়ে মারপিট করে। পরে আবারো ধাওয়া দিলে নিজেকে রক্ষা করতে জাহাঙ্গীর হোসেন থানা অভ্যন্তরে ঢুকে পড়ে। পুলিশ এসময় একটি ধারালো অস্ত্রসহ তাকে আটক করে। এর জের ধরে গতকাল রোববার দুপুর ১২ টার দিকে দূর্গাপুর ঈদগাহর সামনে জাহাঙ্গীর গ্রুপের কর্মীরা যুবলীগের অপর গ্রুপের কর্মী মনিরুজ্জামান ও পারভেজকে বেধড়ক মারপিটের পর তাদের ব্যবহৃত একটি মোটরসাইকেল ভাংচুর করে। পরবর্তিতে বেলা দুইটার দিকে আলীয়া মাদ্রাসার সামনে আবারো দুই গ্রুপের মধ্যে ধাওয়া পাল্টা ধাওয়াসহ সংঘর্ষ হয়। এতে স্থানীয় সংসদ সদস্য স্বপন ভট্টচার্যের ভাগ্নে উপজেলা যুবলীগের সহ সভাপতি উত্তম চক্রবর্তী বাচ্চু, ইব্রাহিম হোসেন ও এ্যানি সহ পাঁচজন আহত হয়।   অবশ্য এসময় পুলিশি হস্তক্ষেপে পরিস্থিতি শান্ত হয়। পুলিশ সেখান থেকে যুবলীগের কর্মী শফিকুল ইসলামকে আটক করে। পরে আহতদের উদ্ধার করে মনিরামপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়।এর মধ্যে ইব্রাহিম হোসেনের অবস্থার অবনতি হলে উন্নত চিকিৎসার জন্য গতকাল বিকেলে তাকে যশোর ২৫০ শয্যা হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়। শনিবার রাতে যুবলীগ কর্মী মিজানুর রহমান বাদি হয়ে জাহাঙ্গীর হোসেনসহ প্রতিপক্ষ গ্রুপের ১২ জনের বিরুদ্ধে একটি মামলা করেন। অপরদিকে একই রাতে এএসআই মোজাহিদ বাদি হয়ে অস্ত্র আইনে জাহাঙ্গীর হোসেনের নামে একটি মামলা করেন। তবে ওসি তাহেরুল ইসলাম জানান রোববারের ঘটনায় মামলার প্রস্তুতি চলছে। পৌরশহরে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।


Spread the love