রাজশাহীতে স্মরণকালের ভয়াবহ বিদ্যুৎ বিপর্যয়

59
Spread the love

নাজিম হাসান,রাজশাহী : স্মরণকালের ভয়াবহ বিদ্যুৎ বিপর্যয়ের মধ্যে পড়েছে পুরো রাজশাহী অঞ্চল। কোনো ঝড়ো হাওয়া নেই, বুধবার সন্ধ্যার এক পশলা বৃস্টির পর থেকে বিদ্যুৎ বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়ে রাজশাহী অঞ্চল। সারারাত পেরিয়ে বৃহস্পতিবার বিকেল পর্যন্তও বিদ্যুৎ বিচ্ছিন্ন রয়েছে। ফলে রোজার মাসে চরম ভোগান্তির মধ্যে পড়েছেন এ অঞ্চলের মানুষ। বন্ধ রয়েছে সব ধরনের কলকারখানা। বিদ্যুৎ সংকটের কারণে ঈদের বাজারে কেনাকাটা লাটে উঠেছে। রাজশাহী থেকে প্রকাশিত দৈনিক সানশাইন বৃহস্পতিবার প্রকাশিত হয়নি। বিদ্যুতের অভাবে থমকে গেছে সব ধরনের কার্যক্রম। অফিস আদালত, ব্যাংক বীমা কোম্পানীগুলোতেও বিপর্যয় নেমে এসেছে। কখন বিদ্যুৎ পরিস্থিতি স্বাভাবিক হবে তাও বলতে পারছেন না বিদ্যুৎ বিভাগের কর্মকর্তারা। সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, বুধবার সন্ধ্যায় বৃষ্টির সময় রাজশাহীর কাটাখালিতে স্থাপিত বিদ্যুৎ উপকেন্দ্রের সঞ্চলন লাইনে বড় ধরনের ত্রুটির মধ্যে পড়ে। এরপর থেকে রাজশাহী অঞ্চলে বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়ে বিদ্যুৎ ব্যবস্থা। রাতে কিছু কিছু এলাকায় সামান্য সময়ের জন্য বিদ্যুত সংযোগ দেয়া হলেও কয়েক মিনিটের মধ্যে আবারো বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়ে। এদিকে টানা ২০ ঘণ্টার বেশী সময় ধরে বিদ্যুৎ বিচ্ছিন্ন থাকায় বন্ধ আছে কম্পিউটার, ফটোকপিসহ বিভিন্ন দোকাপাটের কার্যক্রম। বুধবার সন্ধ্যায় ইফতারিসহ বৃহস্পতিবার ভোরে অন্ধকারের মধ্যেই মুসল্লিদের সেহরি খেতে হয়েছে। নামাজও আদায় করতে হয়েছে অন্ধকারের মধ্যে। নগরীর আরডিএ মার্কেটে ভুতুড়ে পরিবেশ লক্ষ্য করা গেছে। অন্ধকারের কারণে অনেকে দোকান খোলেন নি। ব্যবসায়ীরা বলছেন বিদ্যুৎ বিভ্রাটে ঈদের কেনাকাটা লাটে উঠেছে। ক্রেতারা আসলেও দোকানে আলোর ব্যবস্থা না থাকায় বিক্রি করা যাচ্ছে না। এদিকে ব্যাংক বীমা ও সরকারি অফিস আদালতেও কার্যক্রম বিঘিœত হয়েছে। নগরীর অনেক বাড়িতে বিদ্যুতের অভাবে পানি সংকট দেখা দিয়েছে। সকাল থেকে অনেক এলাকার বাসাবাড়িতে পানির জন্য হাহাকার পড়ে গেছে। রাজশাহী থেকে প্রকাশিত দৈনিক সানশাইন প্রকাশিত হয়নি। এমন বিদ্যুৎ বিপর্যয় অতিতে হয়নি বলে দাবি করেন অনেকে। রাজশাহী নগরীর আরডিএ মার্কেটের ব্যবসায়ীরা জানান, কোনো ঝড়-ঝাপ্টা নেই। সামান্য এক পশলা বৃষ্টির পর থেকে বিদ্যুৎ বিচ্ছিন্ন হয়ে যায়। তীব্র গরমে ও অন্ধকারে দোকানপাট বাধ্য হয়ে বন্ধ রাখতে হয়েছে। সকালে বিদ্যুৎ পরিস্থিতি স্বাভাবিক হওয়ার আশায় অনেকে দোকানপাট চালুর সিদ্ধান্ত নিলেও শেষ পর্যন্ত বিদ্যুৎ পরিস্থিতি স্বাভাবিক না হওয়ায় লাটে উঠেছে তাদের ঈদের কেনাবেচা। দর্জির দোকানে সারারাত ও বৃস্পতিবার বিকেল পর্যন্ত কোনো কোনো কাজকর্ম হয়নি। রাজশাহী বিদ্যুৎ বিভাগের প্রধান প্রকৌশলী ওয়াজেদ আলী বলেন, বুধবার সন্ধ্যায় বৃষ্টির সময় কাটাখালি গ্রিডের পাশে বজ্রপাত হয়। এতে একটি ট্রান্সফরমার পুড়ে যায়। ওই ট্রান্সফরমারটি দিয়েই গোটা রাজশাহীর বিদ্যুৎ সরবরাহ করা হতো। কিন্তু সেটি পুড়ে যাওয়ায় গোটা রাজশাহীর বিদ্যুতের কন্ট্রোল ব্যবস্থা ভেঙে পড়ে। এরপর থেকে গোটা রাজশাহী অন্ধাকারে রয়েছে। কখন নাগাদ বিদ্যুৎ পরিস্থিতি স্বাভাবিক হবে তাও বলতে পারছেন না সংশ্লিষ্ট দফতরের কর্মকর্তারা। রাজশাহী বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ডের এসি আব্দুর রশিদ জানান, বড় ধরনের টেকনিক্যাল ত্রুটির কারনে বিদ্যুতের বিপর্যয় হয়েছে। বিদ্যুৎ বিভাগের কর্মীরা শুরু থেকেই মেরামতের চেষ্টা করছেন। বিকেলের মধ্যে বিদ্যুৎ সরবরাহ করা সম্ভব হবে বলে আশা প্রকাশ করেন তিনি। এদিকে জেলার উপজেলা পর্যায়েও বিদ্যুতের ভয়াবহ সংকট দেখা দিয়েছে। বিদ্যুতবিহীন একটি রাত ও দিন পার করছেন উপজেলার বাসিন্দারা।


Spread the love