রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় ভর্তি পরীক্ষায় জালিয়াতি

70
Spread the love

rabi-university bdবাপ্পী, রাবি প্রতিনিধি : রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় ২০১৫-১৬ প্রথম বর্ষের ভর্তি পরীক্ষার শেষ দিনে জালিয়াতির দায়ে আটক শিক্ষার্থীর ফোনে ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি আতিকুর রহমান সুমনের ফোন নম্বর থেকে আসা খুদে বার্তা পাওয়া গেছে। এ ঘটনায় এই শিক্ষার্থীকে ভ্রাম্যমান আদালত ছয় মাসের কারদ- দিয়েছে। এছ্ড়াা শেষ দিনের পরীক্ষায় অসাদুপায় অবলম্বনের অভিযোগে তিন শিক্ষার্থীকে বহিষ্কার করা হয়েছে। দ-প্রাপ্ত শিক্ষার্থী হলেন, চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলার গোমস্তপুরের শফিউল ইসলামের ছেলে মাহমুদুল হাসান রাজু। মোবাইল ডিভাইসের মাধ্যমে জালিয়াতি করার অভিযোগে রাজশাহী নির্বাহী ম্যাজিস্টেট সাদিয়া জেরিন পাবলিক পরীক্ষা আইন (অপরাধ) ১৯৮০ সালের ১১(গ) ধারা অনুযায়ী তাকে ছয় মাসের বিনাশ্রম কারাদ-ের আদেশ দেন। এদিকে এই শিক্ষার্থীর স্বীকারক্তি পত্রে থেকে জানা যায়, তার ফোনে এসএমএস প্রেরণ করে বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি ও ২০০৭-০৮ সেশনের গণযোগাযোগও সাংবাদিকতা বিভাগের শিক্ষার্থী আতিকুর রহমান সুমন। প্রক্টর প্রফেসর ড. তারিকুল হাসান বলেন, মাহমুদুল হাসান নামের এই শিক্ষার্থীর ইসমাঈল হোসন সিরাজী ভবনে ১০৪ নম্বর কক্ষে সকাল ১১-১২টায় “সি” ইউনিটের জোড় রোল নম্বরধারীদের পরীক্ষাচলাকালীন সময় তাকে আটক করা হয়। সে মোবাইল ডিভাইস তথা এসএমএসের মাধ্যমে পরীক্ষায় জালিয়াতি করছিল। প্রক্টর দপ্তরে জিজ্ঞাসাবাদে বিষয়টি প্রমাণিত হলে, তাকে ভ্রাম্যমান আদালতে ছয় মাসের কারাদ- প্রদান করে।  দ-প্রাপ্ত শিক্ষার্থী স্বীকারোক্তি পত্রে উল্লেখ করেন, আমার সাথে থাকা ফোনে (০১৭২৩৫৫…০৪) নম্বর থেকে সেট কোড দুই এবং তিন এর উত্তর এসএমএসের মাধ্যমে সরবরাহ করা হয়। আমার সেট কোড দুই ছিল আর উত্তর পত্র প্রেরণ করেন, চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলার গোমস্তপুরের মজিবুর রহমানের ছেলে ও সাবেক বিশ্ববিদ্যালয় গণযোগাযোগ শিক্ষার্থী আতিকুর রহমান সুমন। ছাত্রলীগ সহ-সভাপতি যে নম্বর থেকে খুদে বার্তা দ-প্রাপ্ত শিক্ষার্থীকে প্রেরণ করে, তা ঐই নেতার ব্যবহৃত নম্বর বলে বিশ্বস্ত সূত্র নিশ্চিত করেছে।  ঘটনার সাথে জড়িত থাকার বিষয়টি স্পষ্ট হওয়ার পরে, তার বিরুদ্ধে কোন পদক্ষেপ নেওয়া হবে কিনা জানতে চাইলে প্রক্টর তারিকুল হাসান বলেন, আমরা যাবতীয় তথ্য র‌্যাব ও গোয়েন্দাদের কাছে দেওয়া হয়েছে তারা পরবর্তী করণীয় ঠিক করবে। এ ব্যাপারে রাজশাহী র‌্যাব-৫ এর কমান্ডার মেজর আব্দুর রহিম বলেন, গত বুধবার ও বৃহস্পতিবার ডিভাইসের মাধ্যমে জালিয়াতি চক্রকে খুঁজে বের করার চেষ্টা করছি এবং এ বিষয়ে অনেকটা অগ্রগতি হয়েছে।  বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগ সভাপতি মিজানুর রহমান রানা বলেন, বিষয়টি শুনেছি। ঘটনাটি সত্য প্রমাণিত হলে, তার বিরুদ্ধে সাংগঠনিক ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। এছাড়া দ-প্রাপ্ত শিক্ষার্থীর সাথে কথা বলায় একই এলাকার দুরুল হুদার ছেলে জামিল সারওয়ার পরীক্ষা কেন্দ্র থেকে বহিষ্কার করা হয়েছে। পরে দুপুর ১টা থেকে ২টা পর্যন্ত ‘জি’ ইউনিটের বিজোড় রোল নম্বরধারীদের পরীক্ষার সময় রবীন্দ্রভবনের ২২৪ নম্বর কক্ষে থেকে নওগাঁ জেলার রানীনগরের হারুনার রশিদের ছেলে হাবিবুর রহমান ও রাজশাহী জেলার বাগমারার শামসুল ইসলামের ছেলে শরিফুল ইসলাম একে অন্যকে দেখাদেখির চেষ্টা করায় তাদের পরীক্ষা কেন্দ্র থেকে বহিষ্কার করা হয়। এদিকে চারদিন ব্যাপী ভর্তি পরীক্ষা সুষ্ঠু ও সফলভাবে সম্পন্ন হওয়ায় বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি প্রফেসর মুহম্মদ মিজানউদ্দিন শিক্ষক, শিক্ষার্থী, ভর্তিচ্ছু ছাত্র-ছাত্রী, কর্মকর্তা-কর্মচারী, অভিভাবক, রাজশাহী সিটি কর্পোরেশন, স্থানীয় প্রশাসন, পুলিশ প্রশাসন, গণমাধ্যম ও এলাকাবাসীসহ সংশ্লিষ্ট সকলের প্রতি বিশেষ ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেন।
উল্লেখ্য, ভর্তি পরীক্ষার ফলাফল, সাক্ষাতকার ও আনুষঙ্গিক প্রক্রিয়ার সবকিছু বিশ্ববিদ্যালয়ের ওয়েবসাইট িি.িৎঁ.ধপ.নফ থেকে জানা যাবে।


Spread the love