রায়গঞ্জে দুর্বৃত্তদের হাত থেকে আহত সন্তানকে বাঁচাতে গিয়ে মারপিটে বৃদ্ধ মায়ের মৃত্যু

53
Spread the love

রায়গঞ্জ সংবাদদাতা : সিরাজগঞ্জের রায়গঞ্জে দুর্বৃত্তদের হাত থেকে আহত সন্তানকে বাঁচাতে গিয়ে মারপিটে এক বৃদ্ধ মায়ের মৃত্যু হয়েছে। এ সময় আরো ৭ জন গুরুতর আহত হয়। ঘটনাটি ঘটেছে উপজেলার জয়ানপুর গ্রামে। এ ঘটনায় রায়গঞ্জ থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের হয়েছে। কিন্তু থানা পুলিশের ভুমিকা নিয়ে জনমনে নানা প্রশ্ন। মামলা ও গ্রামবাসী সূত্রে জানা গেছে, গত ২২ অক্টোবর রাতে রায়গঞ্জ উপজেলার জয়ানপুর গ্রামে মসজিদের ক্যাশ নিয়ে বসা শালিশী বৈঠকে হযরত আলী ও মোঃ কুরান গং এর মধ্যে কথা কাটাকাটির এক পর্যায়ে সংঘর্ষ বাধে। এ সময় কুরান আলীর ছেলে ওয়াজকুরুনীকে হত্যার উদ্দেশ্যে হযরত আলী গং ক্ষিপ্ত হয়ে ব্যাপক মারপিট করা অবস্থায় তার বৃদ্ধ মা আমেনা বেগম (৭৭) আহত ওয়াজকুরুনীকে বাঁচাতে গিয়ে ওই দুর্বৃত্তদের মারপিটে গুরুতর আহত হন এবং চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি (আমেনা) মারা যান। ওই সংঘর্ষে কুরান আলীসহ তার পক্ষের হাসান আলী, মোঃ আব্দুল মোমেন, মোঃ মুন্নাফ আলী, মোছাঃ মনোয়ারা বেগম, মোছাঃ ফতে খাতুন ও জেসমিন আরাও গুরুতর আহত হয়। এ ঘটনায় আমেনা বেগমের ¯^ামী কুরান আলী বাদি হয়ে রায়গঞ্জ থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেছেন। যার ধারা ১৪৩/৩২৩/৩২৪/৩০৭/৩০২/৩১৪/৩৪ দঃ বিঃ। ওই মামলায় জয়ানপুর গ্রামের হযরত আলী, শামসুল ইসলাম, কাশেম আলী, ওসমান আলী, শাহজাহান আলী, জয়নাল আবেদীন, আবু বক্কার আলী, আব্দুস ছাত্তার, মোঃ ছামিদুল, মোঃ জাহাঙ্গীর আলী, মোঃ সুলতান, মোঃ দুলাল, মোঃ আলম, মোঃ চান আলী, মোঃ মিজান, মোঃ কালাম, মোঃ ছামিদুল (২), মোছাঃ হাফিজা বেগম, মোছাঃ হাসারানী, মোছাঃ আয়শা, মোছাঃ কল্পনা খাতুনকে বিবাদী করা হয়েছে। কিন্তু ঘটনায় ৯ দিন অতিবাহিত হলেও এ সংবাদ লেখা পর্যন্ত পুলিশ কোন আসামীকে গ্রেফতার করতে সক্ষম হয়নি। এ নিয়ে বাদীর পরিবারে চলছে চরম আতংক, উৎকন্ঠা ও হতাশা। বাদী কুরান আলী ও তার পরিবারের লোকজনের অভিযোগ পুলিশ আসামীদের নিকট থেকে মোটা অংকের টাকা নিয়ে তাদের গ্রেফতার করছে না। তারা আরো জানান, আসামীরা প্রকাশ্যে দিবালোকে ঘুরে বেড়াচ্ছে। এ দিকে ওই হত্যা মামলার ঘটনা নিয়ে এলাকায় থানা পুলিশের ভুমিকা নিয়ে জনমনে নানা প্রশ্ন দেখা দিয়েছে বলে বিভিন্ন সূত্রে জানা গেছে। এ ব্যাপারে বাদি ও তার পরিবারের লোকজন সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন। ফোন না ধরায় এ ব্যাপারে রায়গঞ্জ থানার ওসির মতামত নেয়া সম্ভব হয়নি।


Spread the love