লক্ষ্মীপুরের চোর সন্দেহে গণপিটুনি, যুবক নিহত

73
Spread the love

kun bdলক্ষ্মীপুর প্রতিনিধি : লক্ষ্মীপুরের রামগঞ্জে চোর সন্দেহে মুসলিম মিয়া (৪৫) নামের এক যুবককে গণপিটুনি দিয়ে হত্যা করেছে স্থানীয় জনতা। এ ঘটনায় পাঁচজনকে আটক করেছে পুলিশ। সকালে নিহতের লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য লক্ষ্মীপুর সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠিয়েছে পুলিশ। বৃহস্পতিবার ভোর রাতে রামগঞ্জ উপজেলার পশ্চিম আঙ্গার পাড়ায় এ ঘটনাটি ঘটে। নিহত মুসলিম মিয়া রামগঞ্জ উপজেলার আউগানখিল গ্রামের সেকান্দার আলীর ছেলে। আটককৃতরা হলেন- রুহুল আমিন খলিফা, কাউছার, ছায়েম, সামছুন্নাহার ও সাবরিনা আক্তার। পুলিশ ও স্থানীয়রা জানায়, রামগঞ্জ উপজেলার পশ্চিম আঙ্গারপাড়া এলাকায় প্রবাসী বাচ্চু দেওয়ানের বাড়ির ছাদের ওপর সিঁড়ি দিয়ে ঘরের ভিতরে প্রবেশ করে মুসলিম মিয়া। পরে স্বর্ণালংকার ও মালামাল লুট করে নিয়ে যাওয়ার সময় মুসলিম মিয়াকে ধরে ফেলে তারা। পরে শোর-চিৎকার করলে আশপাশের লোকজন এসে জড়ো হন। এক পর্যায়ে মুসলিম মিয়াকে হাত-পা বেঁধে গণপিটুনি দিলে ঘটনাস্থলে তিনি মারা যান। পরে সকালে রামগঞ্জ থানা পুলিশ এসে নিহতের লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য লক্ষ্মীপুর সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠায়। এ ঘটনায় পাঁচজনকে আটক করা হয়েছে। নিহতের স্ত্রী ফৌরদৌসি বেগম জানান, তার স্বামী মুসলিম মিয়া রাজমিস্ত্রীর কাজ করে সংসার চালিয়ে যাচ্ছেন। কেন তাকে গণপিটুনি দিয়ে হত্যা করা হয়েছে। তিনি কখনো চুরির সাথে জড়িত ছিলেন না। এটি একটি পরিকল্পিত হত্যাকাণ্ড বলে দাবি করেছেন তিনি। সহকারী পুলিশ সুপার (সার্কেল) মো. নাসিম মিয়া জানান, চোর সন্দেহে মুসলিম মিয়া নামের এক ব্যক্তিকে গণপিটুনি দিয়ে হত্যা করেছে স্থানীয় জনতা। নিহতের লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য লক্ষ্মীপুর সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে। তবে তার বিরুদ্ধে রামগঞ্জ থানায় দুইটি চুরির মামলা রয়েছে। এ বিষয়ে তদন্ত চলছে। তদন্তের পর আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে। জিজ্ঞাসাবাদের জন্য পাঁচজনকে আটক করা হয়েছে বলে জানান তিনি।


Spread the love