শপথ নিলেন জো বাইডেন

114
Spread the love

অনলাইন ডেস্ক : যুক্তরাষ্ট্রের ৪৬তম প্রেসিডেন্ট হিসেবে শপথ নিলেন জো বাইডেন। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের প্রধান বিচারপতি জন রবার্টস তাকে শপথ বাক্য পাঠ করান। স্থানীয় সময় বুধবার বেলা ১১টায় ওয়াশিংটনের ক্যাপিটল ভবনে এই শপথবাক্য পাঠ করেন তিনি।
এর আগে ভাইস প্রেসিডেন্ট হিসেবে শপথ নেন কমলা হ্যারিস। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সুপ্রিম কোর্টের বিচারপতি সোনিয়া সোটোমেয়র তাকে শপথ-বাক্য পাঠ করান।
এরপর নতুন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন সপরিবারে হোয়াইট হাউসে উঠবেন। এদিন জাতির উদ্দেশে তিনি ভাষণ দেবেন।
এদিকে শপথ অনুষ্ঠানে সম্ভাব্য অভ্যন্তরীণ হামলা এড়াতে ওয়াশিংটনে নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার করা হয়েছে। গত ৬ জানুয়ারি দেশটির ক্যাপিটল হিলে সহিংসতার পর এই নিরাপত্তা ব্যবস্থা কয়েকগুণ বাড়ানো হয়।
প্রেসিডেন্ট হিসেবে শপথ গ্রহণের আগে ওয়াশিংটন ডিসির একটি গির্জায় অনুষ্ঠিত প্রার্থনায় সস্ত্রীক যোগ দেন জো বাইডেন। এ সময় তার সঙ্গে ছিলেন কংগ্রেস নেতা সেনেটর মিচ ম্যাককনেল ও প্রতিনিধি পরিষদের স্পিকার ন্যান্সি পেলোসি।
যুক্তরাষ্ট্রের ইতিহাসে জো বাইডেন দ্বিতীয় রোমান ক্যাথলিক প্রেসিডেন্ট। তার আগে ছিলেন ডেমোক্র্যাট জন এফ কেনেডি। ১৯৬৩ সালে আততায়ীদের গুলিতে কেনেডি নিহত হওয়ার পর এই গির্জাতেই তার শেষকৃত্য অনুষ্ঠিত হয়েছিল।
এদিকে, মার্কিন রাজনীতির ১৫২ বছরের ইতিহাস ভেঙে উত্তরসূরির শপথ অনুষ্ঠানে অংশ না নিয়েই হোয়াইট হাউজ ছাড়েছেন বিদায়ী প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। স্থানীয় সময় বুধবার সকালে মার্কিন ফার্স্ট লেডি মেলানিয়া ট্রাম্পকে নিয়ে হেলিকপ্টারে করে হোয়াইট হাউজ ছাড়েন ট্রাম্প।
হোয়াইট হাউস ছাড়ার আগে ওভাল অফিসে জো বাইডেনের জন্য চিঠি রেখে গেছেন বিদায়ী মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প।
শুধু ডোনাল্ড ট্রাম্পই নন, নতুন ফার্স্ট-লেডির জন্য স্বাগত চিঠি রেখেছেন মেলানিয়া ট্রাম্পও। ঘটনার সঙ্গে পরিচিত একটি সূত্রের বরাতে এ তথ্য জানিয়েছে সিএনএন। তবে ট্রাম্প ও মেলানিয়া তাদের উত্তরসূরির জন্য চিঠিতে কী লিখেছেন, তা এখনও নিশ্চিত নয়।
প্রসঙ্গত, ১৯৪২ সালের ২০ নভেম্বর জো বাইডেনের জন্ম। উত্তরপূর্ব পেনসিলভেনিয়ার স্ক্র্যানটনে বেড়ে ওঠেন তিনি। ডেলাওয়ার বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ইতিহাস ও রাষ্ট্রবিজ্ঞানে পড়াশোনার পাঠ চুকেন বাইডেন। জন এফ কেনেডির রাজনৈতিক কর্মকাণ্ডের অন্যতম ভক্ত ছিলেন তিনি। ১৯৬১ সালের দিকে ধীরে ধীরে রাজনীতির দিকে ঝুঁকে পড়েন।
২০০৯ সালের ২০ জানুয়ারি বাইডেন মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ৪৭তম ভাইস প্রেসিডেন্টের দায়িত্ব নেন। ২০১৭ সাল পর্যন্ত একই পদে ছিলেন তিনি।
যুক্তরাষ্ট্রের ৪৬তম প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের পর থেকেই বিভিন্ন ধরনের অপ্রীতিকর পরিস্থিতির মুখোমুখি হতে হয়েছে বাইডেনকে। ট্রাম্প পরাজয় অস্বীকার করেছেন বারবার। ক্ষমতা হস্তান্তরে তার প্রশাসন চরম অসহযোগিতা করেছে বাইডেন টিমকে।
সবশেষ গত ৬ জানুয়ারি পার্লামেন্ট ভবনে সহিংসতা ঘটনা এটা স্পষ্ট করে দিয়েছে যে, নতুন প্রেসিডেন্টের জন্য সামনের দিনগুলো মোটেও সহজ হবে না। করোনা মহামারি, অর্থনৈতিক দৈন্যদশা, ট্রাম্প প্রশাসনের পররাষ্ট্রনীতির কারণে যে জটিল পরিস্থিতি তৈরি হয়েছে, তার জন্য বাইডেনকে বেশ ভুগতে হবে। এজন্য আগামী দিনগুলো খুব হিসাব করে পা ফেলতে হবে নতুন প্রশাসনকে।


Spread the love