শফিক চৌধুরীকে নিয়ে মন্ত্রীত্বের স্বপ্ন দেখছেন বিশ্বনাথ-বালাগঞ্জবাসী

223
Spread the love

39743বিশ্বনাথ প্রতিনিধি : ‘এলেন। জয় করলেন সবকিছু। স্থাপন করলেন সততা ও নিষ্ঠার উজ্জ্বল দৃষ্ঠান্ত। পূর্বের সকল এমপিদের করা উন্নয়নের পরিধিকে (পরিমান) পেছনে ফেলে রচনা করলেন উন্নয়নের নতুন ইতিহাস। আলোকিত হয়ে উঠল সিলেট-২ (বিশ্বনাথ-বালাগঞ্জ-ওসমানী নগর) নির্বাচনী আসনের এলাকা।’ তিনি আর কেউ নন। সিলেট-২ আসনের সাবেক এমপি ও জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক শফিকুর রহমান চৌধুরী। যুক্তরাজ্যেও মতো দেশের আরাম-আয়েসী জীবন-যাপনকে ত্যাগ করে যিনি নিজ জন্মভূমির অবহেলিত-বঞ্চিত সাধারণ মানুষের কল্যাণে কাজ করে যাচ্ছেন নিরবে। বর্তমানে এমপি না হয়েও কর্মদক্ষতায় তিনি এখনও সাধারণ মানুষের কাছে এমপির আসনেই অধিষ্ঠিত রয়েছেন। ২০০৮ সালের ২৯ ডিসেম্বর ৯ম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে শফিকুর রহমান চৌধুরী প্রথম ব্যক্তি যিনি সিলেট-২ আসনে আওয়ামী লীগের মনোনীত প্রার্থীদের মধ্যে লক্ষাধিক ভোট পান এবং এমপি নির্বাচিত হন। এরপূর্বে এ আসনে আওয়ামী লীগের আর কোন প্রার্থী লক্ষাধিক ভোট পাননি। নির্বাচনে শফিকুর রহমান চৌধুরী বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক এম. ইলিয়াস আলীকে পরাজিত করে ছিলেন। ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারী অনুষ্ঠিত ১০ম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে দলীয় সভানেত্রী ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশ মেনে মনোনয়ন প্রত্যাহার করে শফিকুর রহমান চৌধুরী জাতীয় পার্টির প্রার্থী ইয়াহ্ইয়া চৌধুরী এহিয়ার পক্ষে দলীয় নেতাকর্মীদের নিয়ে কাজ করেন। এহিয়া চৌধুরীকে বিজয়ী করতে এলাকায় উদারতার এক উজ্জ্বল দৃষ্ঠান্ত স্থাপন করেছেন আলহাজ্ব শফিকুর রহমান চৌধুরী। জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক হিসেবে ইতিমধ্যে দক্ষতার সাথে একের পর এক উপজেলার সম্মেলন সম্পন্ন করতে শফিকুর রহমান চৌধুরীর ভ‚মিকা প্রশংসনীয় হয়েছে জেলা ও উপজেলাগুলোর নেতাকর্মীদের কাছে। একারণেই দীর্ঘদিন ধরে শফিকুর রহমান চৌধুরীকে মন্ত্রী হিসেবে দেখার দাবি উত্তাপিত হয়ে আসছে বিভিন্ন উপজেলার সাধারণ মানুষ ও দলীয় নেতাকর্মীদের কাছ থেকে। বিলবোর্ড-ব্যানারের পাশাপাশি ফেইসবুকসহ বিভিন্ন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমগুলোতে আলহাজ্ব শফিকুর রহমান চৌধুরীকে মন্ত্রী হিসেবে দেখেতে চেয়ে চলছে ব্যাপক প্রচার-প্রচারণা। সম্প্রতি সমাজকল্যাণমন্ত্রীর মৃত্যুতে মন্ত্রী পরিষদে সৃষ্ঠ হওয়া শূন্য পদে সততা, যোগ্যতা, দক্ষতা, পরিশ্রম ও ত্যাগের ফসল হিসেবে একজন পরিছন্ন রাজনীতিবিদ হিসেবে আলহাজ্ব শফিকুর রহমান চৌধুরীকে ‘সমাজকল্যাণ মন্ত্রী কিংবা অন্য কোন মন্ত্রী বা প্রতিমন্ত্রী’ হিসেবে দেখা যাবে এমনটি আশাবাদী বিশ্বনাথ উপজেলাবাসীসহ সিলেটের বিভিন্ন উপজেলা ও যুক্তরাজ্য-যুক্তরাষ্ট্রসহ বিলাত প্রবাসীরা। সাধারণ মানুষের ওই দাবির প্রেক্ষিতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা যদি শফিকুর রহমান চৌধুরীকে মন্ত্রী করেন তবে তিনিই হবেন বিশ্বনাথী হিসেবে প্রথম কোন মন্ত্রী। আর প্রতিমন্ত্রী হলে হবেন দ্বিতীয়। এরপূর্বে ১৯৭৯ সালে অনুষ্ঠিত ২য় জাতীয় সংসদ নির্বাচনে এ অঞ্চল থেকে বিএনপির মনোনয়ন নিয়ে এমপি নির্বাচিত হয়ে ‘রেল ও যোগাযোগ’ প্রতিমন্ত্রীর দায়িত্ব পালন করে ছিলেন মরমী গানের অমর স্রষ্ঠা হাছন রাজার নাতি দেওয়ান তৈমুর রাজা। তবে অতীতে এ আসন থেকে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন নিয়ে শফিকুর রহমান চৌধুরীসহ ৪ জন এমপি নির্বাচিত হলেও তাঁদের কেউই মন্ত্রী বা প্রতিমন্ত্রীর দায়িত্ব পালন করার সুযোগ পাননি। সম্প্রতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার যুক্তরাষ্ট্র-যুক্তরাজ্য সফরকালে সেখানে বসবাসরত প্রবাসী বাঙালিরাও প্রধানমন্ত্রীর কাছে আলহাজ্ব শফিকুর রহমান চৌধুরীকে মন্ত্রী করার দাবি জানিয়েছেন বলে জানা গেছে। প্রবাসী বাঙালীদের এ দাবি বাস্তবায়িত হলে প্রথম প্রবাসী ব্যক্তি হিসেবে এমপি নির্বাচিত হওয়ার পর মন্ত্রী হবেন আলহাজ্ব শফিকুর রহমান চৌধুরী। উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি পংকি খান ও সাধারণ সম্পাদক বাবুল আখতার বলেন, এই অঞ্চলের উন্নয়নের বরপুত্র শফিকুর রহমান চৌধুরীকে মন্ত্রী হিসেবে দেখার দাবি শুধু দলীয় নেতাকর্মীদের নয়, সর্বস্থরের জনসাধারণের। এ দাবি পূরণ হলে আমাদের এলাকাসহ দেশবাসী উপকৃত হবেন। আর এর ফলে শফিকুর রহমান চৌধুরীও নিজের সততা, দক্ষতা, যোগ্যতা ও ত্যাগের মূল্যায়ন পাবেন। সর্বপুরী উপকৃত হবে মুক্তিযুদ্ধের স্ব-পক্ষের মানুষ। এ ব্যাপারে আলহাজ্ব শফিকুর রহমান চৌধুরী উত্তরপূর্বকে বলেন, জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের কন্যা, জননেত্রী-প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আমার উপর কোন দায়িত্ব অর্পণ করলে কিংবা আমাকে কোন দায়িত্ব পালনের নিদের্শ দিলে আমি তা সততা ও নিষ্ঠার সাথে পালন করব।


Spread the love