শারদীয় দুর্গা পূজার ছুটিতে সমুদ্র সৈকত কুয়াকাটায় পর্যটকদের উপচে পরা ভীড়

136
Spread the love

kalapara-pic1-kuakata-Jমো.ইমরান,পটুয়াখালী : শারদীয় দুর্গাপুজার ছুটি কাটাতে পর্যটন কেন্দ্র কুয়াকাটার সৈকতে নানা বয়সী পর্যটকদের পদচারনায় মুখরিত হয়ে উঠেছে। দেখা দিয়েছে হোটেল মোটেল গুলোতে সিট সংকট। রেস্তোরাসহ পর্যটনমুখী ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীদের কেনাবেচায় ধুম পড়ে গেছে। রাখাইন মার্কেট, বৌদ্ধ মন্দিরসহ ওখানকার দর্শনীয় স্পট গুলোতে বিভিন্ন বয়সের নারী-পুরুষদের উপচে পরা ভীড় লক্ষ্য করা গেছে। আগত দেশী- বিদেশী পর্যটকদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে ট্যুরিষ্ট পুলিশ ও নৌ-পুলিশের টহল জোরদার করা হয়েছে।
বৃহস্পতিবার সকালে কুয়াকাটা সৈকতে গিয়ে দেখা যায়, সমুদ্রের ঢেউয়ের সাথে নেচে গেয়ে আনন্দ উল্লাসে মেতে উঠেছে বিভিন্ন বয়সের শত শত পর্যটক। প্রচুর সংখ্যক পর্যটকরা বাস, মাইক্রোবাসে এখানে এসেছে। অনেকে হোটেলে সিট না পেয়ে গাড়িতেই আবস্থান করছে। তবে নি¤œমানের আবাসিক হোটেল মালিকরা পর্যটকদের ভীড়কে পুঁজি করে অতিরিক্ত ভাড়া আদায় করছে। এছাড়া খাবার হোটেল গুলোতে অতিরিক্ত টাকা রাখছেন বলে একাধিক পর্যটকের অভিযোগ রয়েছে।
শাহ্ আলী দম্পতি কুয়াকাটায় ভ্রমনে এসে তিনি জানান, পর্যটকদের জন্য এটি খুব সুন্দর স্থান। গত দুই দিন ধরে হোটেলে সিটের জন্য চেষ্টা করেও পাওয়া যায়নি। তাই বাধ্য হয়ে কলাপাড়া পৌর শহরের একটি আবাসিক হোটেলে উঠেছি। তবে প্রাকৃতিক সৌন্দর্য্যে ভরপুর এই কুয়াকাটার বিভিন্ন দর্শনীয় স্থান দেখে ভালই লেগেছে।
অভিজাত আবাসিক হোটেল নীলাজ্ঞনা’র ব্যবস্থাপক সৈয়দ মোস্তফা হাবিব জানান, পর্যটকদের প্রচুর চাপ রয়েছে। আমাদের হোটেলে কোন রুম খালি নাই। এ অবস্থা আরো তিন/চার দিন থাকবে বলে তিনি জানান।
কুয়াকাটা হোটেল মোটেল ওর্নাস এসোসিয়েশনের সাধানর সম্পাদক মো.মোতালেব শরীফ জানান, কুয়াকাটার সব হাটেল মোটেল অগ্রিম বুকিং হয়ে আছে। যারা বুকিং ছাড়া এসেছে সিট পাচ্ছেনা বলে তিনি জানান।


Spread the love