সাভারের সাবেক এমপি সালাহউদ্দিন বাবু ও মেয়র রেফাত ১০ দিনের রিমান্ডে

98
Spread the love

bdঢাকা প্রতিনিধি : সাভারের সাবেক সংসদ সদস্য ও বিএনপি’র জাতীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য ডাঃ দেওয়ান মোঃ সালাহউদ্দিন বাবু এবং সাভার পৌরসভার মেয়র রেফাতউল্লাহর ১০ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছে আদালত। নাশকতার দুই মামলায় গতকাল রবিবার ঢাকার সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট সৈয়দ সিরাজ জিন্নাত শুনানি শেষে এই রিমান্ড মঞ্জুর করেন। এর আগে সাভার থানা পুলিশ এই দুই আসামির প্রত্যেক মামলায় ১০ দিন করে ২০ দিনের রিমান্ড আবেদন করে। প্রসঙ্গত, রাজধানীর পরীবাগ এলাকার নিজ বাসা থেকে গত শনিবার গভীর রাতে সালাহউদ্দিন বাবুকে এবং গতকাল রবিবার সকালে সাভারের উলাইল এলাকার বাসা থেকে মেয়র ও পৌর বিএনপি’র সভাপতি রেফাতউল্লাহকে গ্রেফতার করা হয়। এদিকে বিএনপি’র সহ-দপ্তর সম্পাদক আব্দুল লতিফ জনি স্বাক্ষরে প্রেরিত বিবৃতিতে দলের ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, আইন-শৃঙ্খলা নিয়ন্ত্রণে সরকারের ব্যর্থতা ঢাকতে এবং জনগণের দৃষ্টি ভিন্ন খাতে নেওয়ার জন্য বিএনপি’র নেতা-কর্মীদের গ্রেফতার করা হচ্ছে। তিনি সাভারের বিএনপি’র দুই নেতাকে গ্রেফতারের নিন্দা ও প্রতিবাদ জানান। গতকাল রবিবার গণমাধ্যমে পাঠানো এক বিবৃতিতে বিএনপির’ জাতীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য ও সাবেক সাংসদ দেওয়ান মোহাম্মদ সালাহউদ্দিন এবং সাভার পৌর মেয়র ও পৌর বিএনপি’র সভাপতি রেফাত উল্লাহর মুক্তির দাবি জানানো হয়। গতকাল রবিবার সালাহউদ্দিনকে ঢাকা থেকে এবং রেফাত উল্লাহকে সাভার থেকে গ্রেফতার করা হয়। মির্জা ফখরুল বলেন, গ্রেফতারকৃত নেতা-কর্মীদের আইনি প্রতিকার পাওয়ার অধিকারটুকুও খর্ব করছে বর্তমান সরকার। জনবিচ্ছিন্ন শাসকগোষ্ঠীর হিংসাশ্রয়ী রাজনীতি ও বিরোধী দলীয় নেতা-কর্মীদের রাজনৈতিক কর্মকাণ্ডে যুক্ত না হওয়ার জন্য ভীতি সৃষ্টিই এর একমাত্র লক্ষ্য। তারা একদলীয় শাসনকে পাকাপোক্ত করার জন্য নানামুখী অপকৌশল এটে যাচ্ছে। আর সেই অপকৌশলের অংশ হিসেবে সারাদেশে বিএনপির পুনর্গঠন প্রক্রিয়াকে বাধাগ্রস্ত করার হীন উদ্দেশ্যে বিরোধী দলীয় নেতা-কর্মীদের গ্রেফতার করা হচ্ছে। মির্জা ফখরুল অভিযোগ করেন, আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীকে যথাযথভাবে কাজে না লাগিয়ে বিএনপিসহ বিরোধী দলীয় নেতা-কর্মীদের বিরুদ্ধে লেলিয়ে দেওয়ার কারণেই আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতির ভয়াবহ অবনতি ঘটেছে। বর্তমান অবনতিশীল আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতিতে গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করে তিনি বলেন, এই পরিস্থিতির জন্য সরকারই দায়ী।


Spread the love