সুনামগঞ্জের হাট বাজারে ঈদের বেচাঁ কেনা জমজমাট

112
Spread the love

102111জাহাঙ্গীর আলম ভুঁইয়া,সুনামগঞ্জ : সুনামগঞ্জে ঈদের কেনা কাটা শুরু হয়েছে আর ব্যস্ত সময় পার করছে বিভিন্ন বিপনী বিতান ও গরু ক্রেতা-বিক্রেতাগন। আর কোরবানী ঈদ কে সামনে রেখে গরীব,ধনী সবাই যার যার সাধ্য মত আনন্দে ভাঁসার চেষ্টা করছে সুনামগঞ্জের হাওরবাসী। কোরবানীর ঈদে বড়দের কাপড়ের প্রতি আকর্শন না থাকলেও পরিবারের ছোটরা নতুন কাপড় না হলে ঈদের আনন্দ মাটি হয়ে যাবে তাই পছন্দের কাপড় কিনার জন্য বিপনী বিতান গুলোতে শেষ সময়ে চলছে প্রতিযোগীতা। হাওরঞ্চলের হাট বাজার গুলোতে ছোট ছোট গার্মেন্টস ও শাড়ি কাপড়ের দোকানে ক্রেতাদের ভিড় লক্ষ্য করা গেছে। আর বাড়ির বড় কর্তাগন ছুটছেন গরুর হাটে সাদ্ধ,স্বাদ্ধ আর পছন্দের মধ্যে কোরবানীর গরু কিনার জন্য। যার ফলে কোরবানীর হাট বেশ জমজমাট হয়ে উঠেছে। ফলে সুনামগঞ্জ সদর সহ তাহিরপুর,জামালগঞ্জ,জগন্নাথপুর,দিরাই,ছাতক সহ প্রতিটি উপজেলা বাজারের বিপনী-বিতানে বইছে ঈদ আনন্দে নতুন কাপড় ও কোরবানীর গরু কেনার জোয়ার বইছে। আর ছোট ছোট ছেলে,মেয়ে,নারী,পুরুষ সবাই নতুন পোষাকে নতুন সাঁজে নিজেকে সাঁজাতে ব্যস্ত হয়ে উঠেছে আর বিড় করছে বিপনী বিতানে। সালোয়ার,কামিজ,পাঞ্জাবী,ফতুয়া,শার্ট,টি-শার্ট ও শাড়িতে দেখা গেছে নতুনত্ব কয়েক বছর ধরে। দেশি পোষাকের বিভিন্ন ব্যান্ডের ব্যতিক্রমী ডিজাইনের পোষাকের খুঁজে ছুটছেন অনেকে শহরের ফ্যাশন হাউজ গুলোতে। দেশিয় ঐতিহ্য ও সাংকৃতির নানা উৎপাদন ব্যবহার করে পোষাকে শত ভাগ বাঙ্গালিয়ানা ফুটিয়ে তুলতে ব্যস্ত ফ্যাশন হাউজ গুলো। মেয়েরা কেউ বাঙ্গালী সাঁজে বার হাত শাড়ী পড়ে,হাতে রেশমী চুরি কেউ থ্রি পিছ দিয়ে স্লিম কাটের আধুনিক সাজে,ছেলেরা শার্ট-লুঙ্গি আবার কেউ জিন্স পেন্ট গেঞ্জি,পাঞ্জাবী পড়ে ঈদের আনন্দ একে অন্যের সাথে ভাগ করতে অস্তির হয়ে উঠেছে। বাঙ্গালী নারী বার হাত শাড়ি ছাড়া যেন এক বারে বেমানান সাথে মেহেদী,মাথায় টিকলি,গলায় হার,কানে ঝুমকা আর হাতে রেশমি চুড়ি,মালা,কানের দুল,চুলের রাবার,ব্যান্ড,ফিতা,নেইলপলিশ,লিপস্টিটিক,চুলের খোপ পোষাকের সাথে মিল রেখে গহনাও কিনছে তাই কসমেটিকস,এমিটেশনের গহনার দোকানে ও ভিড় জমেছে বেশ। নামে ভিনদেশী কিন্তু পড়লে বাঙ্গালী এমনেই এক পোষাক হল পাঞ্জাবী। উৎসব এলেই বাঙ্গালী ছেলেরা বনে যায় পাঞ্জাবী ওয়ালা। নতুন শার্ট বা টি-শার্ট বাজারে যতই থাকুক না কেন নতুন পাঞ্জাবী চাই। পাঞ্জাবী ছাড়া মুসলমানদের পুরুষদের ঈদ যেন বেমানান। ঈদ এলে ছেলে বুড়ো সবারই চাই পাঞ্জাবী। তরুনরা স্লিম কাটের পাঞ্জাবী বেশী পছন্দ হলেও বয়স্কদের পছন্দ ট্রাডিশনাল পাঞ্জাবী। ঈদ কে সামনে রেখে তাহিরপুর উপজেলার ৭টি ইউনিয়নের প্রতিটি হাট বাজারের ক্রেতাদের পরিবর্তিত ডিজাইন,মার্জিত,রুচি সম্পন্ন,চাহিদা,মান সম্মত ও গরম কে সামনে রেখে বিভিন্ন ডিজাইন,রংঙের পাঞ্জাবী সহ সব ধরনের শুতি কাপড়ের ওপর বেশি নজর দিয়েছেন বিক্রেতা ও ক্রেতা গন। ফলে নতুন পোষাকের বৈচিত্র্যময়ে ভড়ে উঠেছে দোকান গুলোর পড়েতে পড়েতে। সাধ আর সাধ্যের মেলাতে কম ও মধ্য আয়ের মুসলমান লোকজন ঈদে বেছে নিচেছন ফুটপাতের দোকান গুলোতে। এখানে কম বেশি সবেই মিলছে থ্রি পিছ,পাঞ্জাবী,শার্ট,গেঞ্জি কম দামের চাহিদা অনুযায়ী জামা-কাপড় পাওয়া যাচ্ছে। ব্যবসায়ীগন জানান-বেচা-কেনা ভালই,এই ঈদে সবাই কোরবানী দেবার জন্য ব্যস্থ কাপড়ের প্রতি তেমন আকর্ষন না থাকলেও পরিবারের ছোটদের জন্য ত আর না কিনে থাকা যায় না। তাছাড়া কম বেশী সবাই কাপড় কিনছে মন্দ না।


Spread the love