হাকালুকি হাওরে ধরা পড়ছে সমূদ্রের রূপালী ইলিশ

74
Spread the love

10সিলেট প্রতিনিধি : এশিয়ার বৃহত্তম হাওর হাকালুকি। জীববৈচিত্র্যে ভরপুর হাকালুকিতে এবার বর্ষার শুরুতে ধরা পড়তে শুরু করেছে সমূদ্রের রূপালী ইলিশ। গত কয়েকদিন ধরে জেলেদের জালে ধরা পড়তে শুরু করেছে নোনা পানির এ মাছটি। কুশিয়ারা নদীর সাথে সংযুক্ত খালগুলো দিয়ে হাকালুকি হাওরে ইলিশ মাছ প্রবেশ করে থাকতে পারে বলে জেলেদের ধারণা। স্থানীয় লোকজনের সাথে আলাপ করে জানা যায়- কুশিয়ারা নদীর সাথে হাকালুকি হাওরের বেশ কয়েকটি সংযুক্ত খাল রয়েছে। বর্ষায় খালগুলো পানিতে ভরে ওঠলে কুশিয়ারা নদী থেকে প্রচুর মাছ হাওরে প্রবেশ করে। প্রতিবছর হাওরে জেলেদের জালে মাঝে মধ্যে ইলিশ ধরা পড়ে থাকে। কিন্তু এবছর বর্ষার শুরুতেই জেলেদের জালে ঝাঁকে ঝাঁকে ইলিশ ধরা পড়তে শুরু করেছে। জেলেরা জানান- জালে ধরা পড়া বেশিরভাগ ইলিশের ওজন ২০০-৫০০ গ্রাম। সর্বোচ্চ ৯০০ গ্রাম ওজনের ইলিশও ধরা পড়েছে। হাওর থেকে ধরা পড়া ইলিশ বাজারে অন্য ইলিশের চেয়ে বেশি দামে বিক্রি হয় বলে জানান তারা। ভারতের বরাক নদী সিলেটের জকিগঞ্জের আমলশীদ সীমান্ত দিয়ে বাংলাদেশে সুরমা ও কুশিয়ারা নাম ধারণ করে প্রবেশ করেছে। কুশিয়ারা নদীটি পদ্মার সাথে যুক্ত রয়েছে। আগাম বন্যা বা পাহাড়ী ঢল নামলে হাকালুকি হাওরের পানি কুশিয়ারা নদী দিয়ে পদ্মায় গিয়ে নামে। ফলে ইলিশ মাছ প্রজনেনর জন্য স্রোতের বিপরীতে আসতে থাকে। একসময় তারা হাকালুকি হাওরে ঢুকে পড়ে। হাকালুকি হাওরে ইলিশ মাছ ধরা পড়া প্রসঙ্গে মৌলভীবাজার জেলার মৎস্য কর্মকর্তা শফিকুজ্জামান সাংবাদিকদের জানান- হাওরে ধরা পড়া ইলিশ মাছগুলো আকারে ছোট হয়, স্বাদও পদ্মার ইলিশের মতো নয়। হাওরে ঢুকে পড়া ইলিশ তাদের খাদ্যাভাস মতো খাবার না পেয়ে বেড়ে ওঠতে পারে না। খাবারের অভাবে একসময় মাছগুলো মারা যায়। প্রসঙ্গত, ২০০৪ সাল থেকে হাকালুকি হাওরে বর্ষাকালে জেলেদের জালে ইলিশ মাছ ধরা পড়ছে। তবে এবার আগাম বন্যার কারণে অন্য বছরের তুলনায় বেশি পরিমাণে ইলিশ ধরা পড়ছে।


Spread the love